হাফেজ মওলানা নেসার উদ্দিন আহমদের ইন্তেকাল

বর্তমান সময়ের বিখ্যাত আলেমে দ্বীন ও বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ ও মোবাল্লেগ হাফেজ মওলানা নেসার উদ্দিন আহমেদ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে গত রাত সাড়ে দশটায় সাউথ লন্ডনের সেন্ট জর্জ হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন। (ইন্না লিল্লাহে ওয়া ইলাহি রাজিউন)। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৭২ বছর। মরহুম ২ ছেলে,৬ মেয়ে ও অগণিত ভক্ত অনুরাগী রেখে গেছেন।

গত পাঁচ দশক ধরে মরহুম হাফেজ নেসার উদ্দিন বিলেতের বহুমুখী ইসলামী ও সামাজিক কাজে মূল্যবান অবদান রেখেছেন। এ সময়ের ভেতর তিনি দেশে-বিদেশে অনেক মাসজিদ মাদ্রাসা ইয়াতিমখানা ও সমাজ উন্নয়নমূলক প্রতিষ্ঠান স্থাপন করে গেছেন। সৌদি আরবের দারুল ইফতার মোবাল্লেগ থাকাকালীন লন্ডনের বাটারসী ইসলামিক এডুকেশন ও ইসলামিক কালচারাল সেন্টার ও মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেছেন। এছাড়াও সাউথ লন্ডনের বালহাম মাসজিদ ও কলিয়াসউডের দারুল আমান মাসজিদ,গ্লাসগো ও বামিংহামের একাধিক মসজিদ প্রতিষ্ঠায়ও তার উল্লেখযোগ্য অবদান ছিল। তিনি মদিনা ইসলামিক ইউনিভার্সিটি থেকে ইসলামিক থিওলজিতে গ্রাজুয়েশন সম্পন্ন করেন। হাফেজ নেসার উদ্দিন ছিলেন তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান থেকে সদ্য প্রতিষ্ঠিত মদিনা ইউনিভার্সিটির জন্যে প্রথম নির্বাচিত ছাত্র।

তিনি বাংলাদেশের বিভিন্ন উপজাতীয়দের মাঝে ইসলাম প্রচার ও কোরআন শিক্ষার জন্যে ময়মনসিংহের গারো ও সিলেটের মনিপুরী অঞ্চলে বেশ কিছু মসজিদ ও মাদ্রাসা স্থাপন করেছেন। তারই অক্লান্ত পরিশ্রমে বাংলাদেশের গবেষণা ও শিক্ষাধর্মী প্রতিষ্ঠান শাহ ওয়ালি উল্লাহ ইসলামী সেন্টার বাংলাদেশ,বিভিন্ন এলাকায় স্কুল মাদ্রাসা ও নানা সামাজিক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সেবা প্রতিষ্ঠান শেল্টার ফাউন্ডেশনের তিনি ছিলেন প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান।
হাফেজ নেসার উদ্দিনের জন্মস্থান লক্ষীপুর জেলায়। তারই প্রতিষ্ঠিত জামিরতলী দারুস সুনড়বাহ ইসলামিয়া সিনিয়র মাদ্রাসা ও আল মানসুর ইয়াতীমখানাসহ অনেক প্রতিষ্ঠান কোরআনের শিক্ষা প্রচার ও অসহায় মানবতার সেবা করে যাচ্ছে।
ব্যক্তিজীবনে তিনি ছিলেন একজন নিবেদিতপ্রাণ কোরআনের প্রচারক ও সমাজকর্মী। নিজের আত্মজীবনীসহ কিছু মূল্যবান প্রকাশনাও তিনি সমাজকে উপহার দিয়েছেন।- প্রেস বিজ্ঞপ্তি

You Might Also Like