গাজী ও আজমলের বোলিং অ্যাকশন বৈধ: আইসিসি

গত ২৪ জানুয়ারি চেন্নাইয়ে যে পরীক্ষা দিয়েছিলেন তাতে পাস করেছেন বাংলাদেশের অফস্পিনার সোহাগ গাজী। পরীক্ষায় পাস করেছেন পাকিস্তানি স্পিনার সাঈদ আজমলও। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে কাউন্সিলের (আইসিসি) ছাড়পত্র পেয়েছেন এই দুই বোলার, মুক্তি পেয়েছেন নিষেধাজ্ঞা থেকে। এখন থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিং করার বিষয়ে আর কোনো বাধা নিষেধ থাকছে না সোহাগ গাজী ও সাঈদ আজমলের। শনিবার এ দুই স্পিনারকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিং করার বিষয়ে ছাড়পত্র দিয়েছে আইসিসি।
উল্লেখ্য, আইসিসির বেধে দেওয়া নিয়মানুযায়ী বল ডেলিভারি দেওয়ার সময় একজন বোলারের কনুই ১৫ ডিগ্রির চেয়ে বেশি বাঁকতে পারবে না। কিন্তু সোহাগ গাজী ও সাঈদ আজমলের কুনই এর চেয়ে বেশি বেঁকে যেত। বোলিং অ্যাকশনে এ ত্রুটির কারণে গত বছর আগস্টে স্বাগতিক ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচ চলাকালে তাই গাজীর বোলিং নিয়ে আপত্তি তুলেছেন আম্পায়াররা। পরবর্তীতে কার্ডিফের গাজীর বোলিং অ্যাকশনের পরীক্ষা নেওয়ার পর অক্টোবরে তাকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বোলিং করার বিষয়ে নিষিদ্ধ করে আইসিসি। ফলে আসন্ন আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপে বাংলাদেশ স্কোয়াডে জায়গা পাননি সোহাগ গাজী।
এদিকে, বোলিং অ্যাকশনে একই ত্রুটির কারণে গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ ছিলেন সাঈদ আজমল। যে কারণে পাকিস্তানের বিশ্বকাপ স্কোয়াড থেকেও বাদ পড়েছেন তিনি।
বোলিং অ্যাকশন শোধরানোর পর গত ২৪ অক্টোবর ভারতের চেন্নাইয়ের শ্রী রামাচন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে পরীক্ষা দিয়েছিলেন এই দুই বোলার। সেই পরীক্ষার প্রেক্ষিতেই শনিবার আইসিসির ছাড়পত্র পেয়েছেন তারা।
তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ফিরলেও ভবিষ্যতে ফের নিষিদ্ধ হওয়ার ঝুঁকি থেকে যাচ্ছে গাজী ও আজমলের। কেননা, ভবিষ্যত তাদের বোলিং অ্যাকশন অবৈধ মনে হলে তা রিপোর্ট করার জন্য আম্পায়ারদের পূর্ণ স্বাধীরতা প্রদান করেছে আইসিসি। ইতোমধ্যে এই দুই বোলারের পরবর্তী বোলিং অ্যাকশনের ভিডিও ফুটেজ আম্পায়ারদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

You Might Also Like