সারা মাসের পরিশ্রম ওরা পুইড়া ছাই কইরা দিলো

২০ দলের হরতাল-অবরোধে দুর্বৃত্তদের ছোঁড়া পেট্রলবোমায় দগ্ধ হয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন শফিকুল ইসলাম (১৮)। আইকন পরিবহনের একটি বাসে করে কক্সবাজার থেকে ঢাকায় আসার সময় গত ৩ ফেব্রুয়ারি ভোরে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে তিনি পেট্রলবোমায় দগ্ধ হন।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন দগ্ধ শফিকুল ইসলাম বলেন, “আমি একজন হকার। কক্সবাজারে খই বিক্রি করি। একমাস আগে ১৫-২০ মণ খই নিয়ে বিক্রির জন্য গিয়েছিলাম কক্সবাজারে। সব খই বিক্রি শেষে নিজ বাড়ি নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁওয়ের কাফিকান্দায় ফিরছিলাম। চিন্তা করেছিলাম পরিবারের সঙ্গে একটু বেশি সময় পার করবো। দেড় লাখ টাকার মতো মালামাল নিয়ে সোনারগাঁওয়ে ফিরছিলাম। বাড়ি ফেরার সময় আগুন দিয়া ওরা আমার সারা মাসের পরিশ্রম পুইড়া ছাই কইরা দিলো।”

শফিকুলের পিতা আলাউদ্দিন একজন রিকশাচালক। দুই মাস আগে তার মা মারা যান। চার ভাই ও দুই বোনের মধ্যে শফিকুল দ্বিতীয়। একমাস পর ভাইকে দগ্ধ অবস্থায় দেখবেন এটা চিন্তা করতে পারেননি আবুল হোসেন।

আবুল হোসেন বলেন, আমাদের ব্যবসা একটু অন্যরকম। শফিকুল খই নিয়ে কক্সবাজারে বিক্রি করতো। কিন্তু এর বিনিময়ে সে টাকা নিত না। মানুষের চুল, তামা অথবা পিতলের পণ্যের বিনিময়ে সে পাইকারি ও খুচরা খই বিক্রি করতো। খইয়ের বিনিময়ে মানুষের চুল, তামা অথবা পিতলের পণ্য নিয়ে সে আবার সোনারগাঁও এসে সেগুলো বিক্রি করত।

জানতে চাইলে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের আবাসিক সার্জন ডা. পার্থ শংকর পাল বলেন, শফিকুলের হাত, মুখমণ্ডলসহ শরীরের ২৮ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

You Might Also Like