কুমারীত্বই কি সুখী জীবনের মাপকাঠি ?

কুমারীত্ব প্রত্যেকটি নারীর জীবনে অমূল্য সম্পদ। সৃষ্টির শুরু থেকে বর্তমান কাল পর্যন্ত এ নিয়ে আমাদের মাঝে ধারণার তেমন কোনও পরিবর্তন আসেনি। আমাদের চারপাশে প্রায়ই দেখা যায়, এ নিয়ে নানা ঘটনা ঘটে। বিশেষ করে বিয়ের পর স্বামী যদি প্রচলিত ধারণা অনুযায়ী প্রথমদিনে সহবাসের সময় স্ত্রীর দুর্বলতা দেখতে পায় এবং তার কাছে যদি মনে করে তার স্ত্রীর আগে কারও সাথে শারীরিক সম্পর্ক ছিল।

তবে মূল কথা হচ্ছে, আপনি আপনার স্ত্রীর কুমারীত্ব বুঝবেন কীভাবে। আপনার মাঝে প্রচলিত যে ধারণাটি আছে সেটি চিকিৎসকদের ভাষায় কুমারীত্ব বুঝার যথাযথ মাধ্যম না। কারণ, অনেক মেয়ের জন্ম থেকেই গোপনাঙ্গে হাইমেন তথা পাতলা পর্দাটি থাকে না। আবার অনেকের খেলাধুলা করলে, সাইক্লিং করলে বা বা নৃত্য করলে ওই পাতলা পর্দাটি ফেঁটে যায়।

তাছাড়া বর্তমানে চিকিৎসা বিজ্ঞানে এমন এক ধরনের পদ্ধতি আবিষ্কার হয়েছে যার মাধ্যমে একজন প্লাস্টিক সার্জন কোনও মেয়ের গোপনাঙ্গে হাইমেনের প্রতিকৃতি স্থাপন করতে পারে।

স্ত্রীরোগবিশেষজ্ঞ ও যৌন বিষয়ে পরামর্শদাতা ডা. মাহিন্দ্র ভাটসা বলেছেন, আমার কাছে এমন অনেকেই এসে প্রশ্ন করে, আমরা কীভাবে বুঝবো যে আমার স্ত্রীর কুমারীত্ব আছে। আমার উত্তর হচ্ছে, কুমারীত্ব আছে কিনা সেটি বোঝার কোনও উপায় নেই।

যৌন বিশেষজ্ঞ ডা. রাজন ভন্সলে বলেছেন, একজন নারীর আগে যৌন সম্পর্ক হয়েছিল কিনা সেটি বুঝার কোনও উপায় নেই যদি না সে স্বীকার করে কিংবা গর্ভবতী হয়।

এখন আপনি নিজেই চিন্তা করুন, আপনি কিভাবে বুঝবেন যে স্ত্রী কারও সাথে সহবাস করেছে। দাম্পত্য জীবনে সুখী থাকার জন্যে সবচেয়ে প্রধান বিষয় হলো, দু’জনের মধ্যে বিশ্বাস ও ভালবাসা।

You Might Also Like