স্ত্রী “উপহারে”র চুক্তিতে জেলপালাতে সহায়তা!

কারারক্ষীকে দুইদিনের জন্য দিতে হবে নিজের স্ত্রীকে। সেই সঙ্গে ৭০ হাজার টাকা। তবেই জেল থেকে তাকে পালাতে সহায়তা করবেন কারারক্ষী ও তার সহযোগী! শেষমেশ এমন চুক্তিতেই দফারফা হয়। ঝালকাঠি জেলা কারাগার থেকে কয়েদি মনিরকে পালাতে সাহায্য করেন কারারক্ষী খালেক ও তার সহযোগী হাসান।

কিন্তু‘ পালিয়েও তার শেষরক্ষা হয়নি। চট্টগ্রামে ফের পাকরাড়াও হয়েছেন তিনি। এরপর ঝালকাঠি পুলিশ সুপারের কাছে হাজির করা হলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এসব কথা জানান কয়েদি মনির।

শুক্রবার দুপুরে ঝালকাঠি পুলিশ সুপার মজিদ আলী তার কার্যালয়ে এক প্রেস ব্রিফিং করেন।

মনির জানান, ঝালকাঠি থেকে পালিয়ে ভোলা হয়ে লঞ্চে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম গিয়ে ভিক্ষুক সেজে ছিলেন তিনি।

গত ১৫ জানুয়ারি শুক্রবার সকালে কারাগারের ভেতরের পাইপ বেয়ে জেলারের বাসার উপরে উঠে সিঁড়ি বেয়ে নেমে যান চুরি মামলার সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি মনির।

তিনি নলছিটি উপজেলার ফুলহরি অভয়নীল গ্রামের জয়নুদ্দীন হাওলাদারের পুত্র। জেল থেকে আসামি পলানোর ঘটনায় ঝালকাঠির ভারপ্রাপ্ত জেল সুপার বুলবুল আহমেদ বাদী হয়ে ২২৪ ধারায় ঝালকাঠি সদর থানায় একটি মামলা দায়ের করেছিলেন।

You Might Also Like