ভাইয়ের লাশ নিয়ে দেশে ফিরতে চান তারেক, বিমানবন্দরেই গ্রেফতারের প্রস্তুতি সরকারের

ছোট ভাই আরাফাত রহমান কোকোর লাশ নিয়ে ফিরতে চাইলে বা জানাযায় আসতে চাইলেই বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমান দেশে আসামাত্র গ্রেপ্তার করবে সরকারের আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। সেই ভাবে প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছেন। সরকারের কাছে এখনও তার আসার বিষয়টি নিশ্চিত না হওয়ায় সরকারও এই ব্যাপারে খবর রাখছে।

সরকারের একজন মন্ত্রী ও একজন প্রতিমন্ত্রী বলেছেন,তিনি আসবেন কিনা এটা এখনও নিশ্চিত নয় সরকার। সরকার দুই দিকই বিবেচনা করছে। সরকারের সিদ্ধান্ত রয়েছে তারেক রহমান দেশে ফিরলেই তাকে গ্রেপ্তার করার। এরপর তিনি ভাইয়ের জানাজায় অংশ নিতে চাইলে তাকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়া যেতে পারে।

এই ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন,তারেক রহমান একজন ফেরারী আসামী। তার বিরুদ্ধে অনেক মামলায় গ্রেপ্তারী পরোয়ানা রয়েছে। বিমাবন্দরেও নির্দেশ রয়েছে তিনি দেশের মাটিতে যখনই পা রাখবেনই তখনই তাকে বিমানবন্দর থেকে গ্রেপ্তার করে সরাসরি কারাগারে নিয়ে যাওয়া হবে। এখন ভাইয়ের লাশ নিয়ে দেশের ফিরে আসলেও তাই করা হবে।

লন্ডন থেকে একটি সূত্র বলেছে, কোকোর মৃত্যুর পর তারেক রহমান অনেকটা বিচলিত হয়ে পড়েছেন। বিশেষ করে তার মায়ের জন্য। এখন কোকোর শোক তিনি কেমন করে কাটাবেন সেটা নিয়ে তিনি উদ্বিগ্ন। তার মা কোকোর শোকে আরো অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন বলেও আশঙ্কা করছেন। আর এই কারনে ছোট ভাই আরাফাত রহমান কোকোর লাশ নিয়ে দেশে আসতে চান তারেক রহমান।

সূত্র জানায়,তারেক রহমান তার ভাইয়ের লাশ নিয়ে দেশে আসার ইচ্ছে প্রকাশ করেছেন তার ঘনিষ্ট কয়েকজনের কাছে। তারা তাকে বিভিন্ন দিক খতিয়ে দেখতে বলেছেন। এছাড়াও তার ভাইয়ের গায়েবানা জানাজায় অংশ নিয়েও এরপর নিকটজনদের কাছে ভাইয়ের জানাজা দেশের জনগনকে নিয়ে পড়ার ইচ্ছে প্রকাশ করছেন।

এদিকে বিএনপি চেয়ারপারসনের একটি ঘনিষ্ট সূত্র জানায়, তারেক রহমান তার ভাইয়ের মৃত্যুতে দেশে আসতে চাইছেন। এদিকে তার ভাইয়ের মৃত্যু অন্যদিকে তার মায়ের অসুস্থতা সব মিলিয়ে তিনি আর লন্ডনে থাকতে চাইছেন না। দেশে ফেরার কথা তিনি তার মা ও ঘনিষ্ট জনকে জানিয়েছেন। তারা সব দিক বিবেচনা করার পরামর্শ দিয়েছেন। সেই হিসাবে তিনি সব দিক খতিয়ে দেখছেন।

একটি সূত্র জানায়, তারেক রহমানের দেশে আসার বিষয়ে আইনী জটিলতার কথাগুলো স্মরণ করিয়ে দিলে তিনি বলেন,আমি নিরাপদে জানাজা পড়তে চাই।

এদিকে তারেকের এমন মনোভাবের কথা জানতে পেরেই প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে ক্ষমতাসীনরা। তারেক আসা- না আসা দুটি বিষয়কেই মাথায় রেখেই তাদের কর্মপরিকল্পনা ঠিক করছে বলে জানিয়েছে সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলি। এবিষয়ে আইন মন্ত্রনালয়ের সাথেও ইতিমধ্যে আইনমন্ত্রনালয়ের কাছ থেকেও প্রয়োজনীয় পরামর্শ নিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়। আর সবদিক আলোচনা করেই দেশে ফিরলেই তাকে আটকের কথা জানিয়েছে সরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী।

তারেক রহমানের ঘনিষ্ট সূত্র জানায়,তারেক রহমানের কোকোকে সাথে নিয়েই দেশে ফেরার ইচ্ছে থাকলেও সরকারের রোষানলের শিকার হওয়ার আশঙ্কায় তাকে এই ব্যাপারে আবেগের বশবর্তী না হয়ে সিদ্ধান্ত নিতে উপদেশ দেওয়া হয়েছে। তবে এখন তিনি তার ভাই,মায়ের চিন্তা করে কি সিদ্ধান্ত নেন তা তার উপরই ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। তবে সিদ্ধান্ত যা ই হোক তা শীগ্রই পরিষ্কার হয়ে যাবে বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের।

You Might Also Like