বিয়েতে আগ্রহ হারাচ্ছে সৌদি নারীরা

সৌদী আরবে বিয়ের বয়স পেরিয়ে যাচ্ছে এমন মেয়ের সংখ্যা লাখ লাখ। ফলে ত্রিশোর্ধ এসব মেয়েদের নিয়ে সমস্যায় পড়েছে সৌদি সরকার।
সম্প্রতি দেশের ‘ফ্যামেলি কেয়ার সোসাইটি’র প্রধান মোহাম্মদ আল আবদুল কাদের এ নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তিনি স্থানীয় ‘মক্কা’ পত্রিকাকে জানিয়েছেন, দেশে ত্রিশোর্ধ অবিবাহিত নারীর সংখ্যা ১৫ লাখ।
তবে সৌদি আরবের অন্য সামাজিক সংগঠনগুলোর মতে দেশে অবিবাহিত নারীদের সংখ্যা ২০ কোটির মত। এই সমস্যার দ্রুত সমাধান না করা হলে সমাজে নানা সমস্যা তৈরি হবে বল্ওে আশঙ্কা করা হয়েছে।
সৌদি আরবের স্বাবলম্বী নারীরা এখন বিয়ের প্রতি আগ্রহ দেখাচ্ছেন না। তারা বিয়ে করার চাইতে নিজেদের কেরিয়ারকেই বেশি প্রাধান্য দিচ্ছেন। ফলে দেশটিতে বিয়ে নিয়ে এ সঙ্কট শুরু হয়েছে।
দেশটিতে অবিবাহিত যুবকদের সংখ্যাও কিন্তু কম নয়। মক্কা ডেইলি বলছে, পর্যাপ্ত আয় না করতে পারার কারণে এসব পুরুষরা বিয়ে করে পরিবার তৈরি করতে পারছেন না। সৌদি সমাজে এখনও যৌতুক একটি প্রধান সমস্যা হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে। সেখানে ছেলেপক্ষকেই যৌতুক দিতে হয।
এ সম্পর্কে এক সামাজিক নেতা বলেন,‘সৌতি আরবে প্রধান সমস্যা হচ্ছে যৌতুক। এছাড়া এখানে বিয়ের আনুষঙ্গিক ব্যয়ও অনেক বেশি। এসব সমস্যার কারণে যুবকরা বিয়ের জন্য বিদেশি পাত্রী খুঁজে থাকেন।’
সৌদি আরর এবং উপসাগরীয় দেশগুলোতে হাজার হাজর পুরুষ বিদেশি মেয়েদের বিয়ে করছে।
২০১০ সালে কুয়েত সরকার বিদেশি নারীদের বিয়ে করা ঠেকাতে একটি কমিটি গঠন করেছিল। ওই কমিটি যুবকদের বিদেশি বিয়ে ঠেকাতে কিছু বিধি নিষেধ চালু করেছিল্
২০০৭ সালে বাহরাইন পার্লামেন্ট এই মর্মে নির্দেশ জারি করেছিল যে, একজন পুরুষ যদি চার বিয়ে করেন তবে তার ‍তিন স্ত্রীকে অবশ্যই বাইরাইনের নাগরিক হতে হবে। অর্থাৎ একজন পুরুষ একাধিক বিদেশি স্ত্রী গ্রহণ করতে পারবেন না।

You Might Also Like