বিষপ্রয়োগে হত্যা করা হয় সুনন্দাকে

আজ মঙ্গলবার সুনন্দার মৃত্যুর ঘটনায় করা অপমৃত্যুর মামলাটিকে হত্যা মামলা রূপান্তর করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করা হয়েছে।

দিল্লির পুলিশপ্রধান ভীমসেন বসি আজ গণমাধ্যমকে জানান, মেডিকেল বোর্ডের রিপোর্টের ভিত্তিতে নিশ্চিত হওয়া গেছে সুনন্দার স্বাভাবিক মৃত্যু হয়নি। তাকে বিষপ্রয়োগে হত্যা করা হয়েছে। তার শরীর থেকে যে বিষ উদ্ধার করা হয়েছে- তা খাবারের সঙ্গে মিশিয়ে কিংবা ইনজেকশন দিয়ে সরাসরি তাকে প্রয়োগ করা হয়।

গত বছরের ১৭ জানুয়ারি নয়াদিল্লির একটি অভিজাত হোটেলের কক্ষ থেকে সুনন্দার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। সেই কক্ষটি থেকে উদ্ধার করা হয় বেশ কিছু হতাশানাশক ওষুধও। তখন এ ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়।

সুনন্দার মৃত্যুর ঘটনা নিয়ে সে সময় ভীষণ জলঘোলা হয়। কারণ মৃত্যুর মাত্র দু’দিন আগে টুইটারে তার স্বামী শশী থারুরের সঙ্গে মেহের তারার নামে এক পাকিস্তানি সাংবাদিকের অন্তরঙ্গ বার্তা তিনি ফাঁস করেন।

সুনন্দার মৃত্যুর জন্য তার স্বামী শশীকেই সন্দেহ করা হয় প্রাথমিকভাবে। কিন্তু গোয়েন্দা সংস্থা ও পুলিশের তদন্ত কাজে শুরু থেকেই সহায়তা অব্যাহত রেখেছেন তিনি।

তবে সর্বভারতীয় চিকিৎসাবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটের পরিচালক ড. সুধীর গুপ্ত গত বছরের জুলাইয়ে অভিযোগ করেন, সুনন্দার ময়নাতদন্ত প্রতিবেদন বদলে দেয়ার জন্য তাকে চাপপ্রয়োগ করা হয়েছিল।

ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের প্রভাবশালী নেতা শশী থারুর সুনন্দার মৃত্যুর সময় দেশীটির কেন্দ্রীয় একজন প্রতিমন্ত্রী ছিলেন। ২০১০ সালে সুনন্দার সঙ্গে বিয়ে হয় তার। এটি ছিল তাদের দু’জনের জন্যই তৃতীয় বিয়ে।

You Might Also Like