‘টিআইবির আয়ের উৎস কী তারও খোঁজ-খবর নেয়া হবে’

দেশে দুর্নীতি বেড়েছে, ট্রান্সফারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)র এমন তথ্যের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যারা দুর্নীতি করে হাজার হাজার কোটি টাকা বানিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কোনো কথা বলছে না টিআইবি। তাদের উদ্দেশ্য কী? সেটাও জানার বিষয়। সরকারের কোথায় কোথায় দুর্নীতি হয়েছে তা তারা স্পষ্ট করে বলুক।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘টাকা পাচার হয়েছে বিদেশে। আমরা সে টাকা উদ্ধার করেছি। অরফানেজের টাকা মেরে দিয়েছেন বিএনপি নেত্রী। মামলা হয়েছে, তিনি ভয়ে কোর্টে যেতে চান না। মামলার ভয়ে পালিয়ে পালিয়ে বেড়ান। কই সে ব্যাপারে তো টিঅইবি কথা বলছে না? তার পুত্র টাকা মেরে লন্ডনে আলিশান জীবনযাপন করছেন। তাদের বিষয়ে তো কোনো কথা হয় না। টিআইবি তাদের দুর্নীতিটা একটু বের করুক না।’

তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ ১৬ কোটি মানুষের দেশ, এখানে কিছু ঘটনা ঘটতেই পারে। দুর্নীতি যা হচ্ছে সব খুচরা। কোন দেশে দুর্নীতি নাই? আমরা সরকারে আছি, আমরা দুর্নীতি করছি কি না সেটা বলুন। আমরা যদি দুর্নীতি করতাম তাহলে এ বিশ্ব মন্দার সময় দেশের প্রবৃদ্ধি ৬ দশমিক ২ ভাগ। মাথাপিচু আয় বেড়েছে।’

বিএনপির আমলের একজন মিডিয়া ব্যক্তিত্বের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সেই ব্যক্তি টাকার পাহাড় গড়েছে। তার বিষয়ে তো তারা (টিআইবি) কোনো কথা বলেনি। তখন টাকা বিনিময়ে ইজ্জত কেনা যেতো।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যারা আজকে কথা বলছে তাদের বিরুদ্ধেও আমরা খোঁজ খবর নেবো। তাদের আয়ের উৎস কী তারও খোঁজ-খবর নেয়া হবে। তাদের টাকা কোথা থেকে আসে কোথায় ব্যয় হয় তার জবাবদিহিতা করতে হবে।’

You Might Also Like