আটক নারী বাগদাদির স্ত্রী ছিলেন ৩ মাস

লেবাননের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জানিয়েছেন, দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে আটক নারী ইসলামিক স্টেটের (আইএস)সর্বোচ্চ নেতা আবু বকর আল বাগদাদির স্ত্রী ছিলেন। তারা তিনমাস দাম্পত্যজীবন কাটিয়েছেন।

এরআগে বাগদাদির স্ত্রী ও কন্যাকে লেবানিজ বাহিনী আটক করার খবর প্রকাশ হলেও, দেশটির কর্তৃপক্ষ এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করেনি। বিষয়টি নিয়ে এই প্রথমবারের মতো লেবানিজ সরকারের পক্ষ থেকে প্রকাশ্যে কোন বিবৃতি দেয়া হল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে লেবাননের নিরাপত্তা কর্মকর্তারা মঙ্গলবার বলেছেন, গতমাসের শেষদিকে সিরিয়া থেকে লেবাননে প্রবেশের সময় সামরিক গোয়েন্দারা বাগদাদির এক স্ত্রী ও কন্যাকে আটক করেছে।

লেবাননের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী নোহাদ ম্যাচনোউক বুধবার দেশটির এমটিভি চ্যানেলকে বলেন, ওই নারী এখন আর বাগদাদির স্ত্রী নন। তিনি বলেন, “শাজা আল-দুলাইমি তিনবার বিয়ে করেছেন আর তিনমাসের জন্য বাগদাদি ছিলেন তার দ্বিতীয় স্বামী, তাও সেটি ছয় বছর আগের ঘটনা।”

পার্বত্য ও গোত্রীয়সূত্রে জানা গেছে, বাগদাদির তিনজন স্ত্রী রয়েছেন। আর দুলাইমির সঙ্গে বাগদাদির সম্পর্ক নিয়ে অস্পষ্টতা রয়েছে।

ইসলামিক স্টেটের (আইএস) বিরুদ্ধে লড়াইরত ইরাক বুধবার আটক ওই নারী বাগদাদির স্ত্রী নয় বলে দাবি করেছে। ইরাক বলছে, ওই নারী দক্ষিণ ইরাকে বোমা হামলার দায়ে অভিযুক্ত এক ব্যক্তির বোন।

এরআগে আল-সাফির পত্রিকা জানিয়েছিল, বাগদাদির স্ত্রীকে লেবাননের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

সিরিয়া এবং ইরাকের বিশাল এলাকা দখল করে ইসলামিক ‘খিলাফত’ প্রতিষ্ঠা করা আইএস এর নেতা হিসাবে বাগদাদির নাম ঘোষণা করা হয় চলতি বছরের জুনে।

নভেম্বরে ইরাকের মসুলের কাছে মার্কিন বাহিনীর নেতৃত্বাধীন বিমান হামলায় বাগদাদির নিহত হওয়ার খবর অস্বীকার করে আইএস জঙ্গিরা। বাগদাদির একটি অডিও টেপও প্রকাশ করে তারা।

You Might Also Like