উপচে পড়া সুখ: ফারজানা আহমেদ

একটি মেয়ে ঘুরে বেড়ায়
হেথায়-হোথায়
জানেনা তার ঠিকানা বা
মা কোথায় ?
একদিন সব ছিলো যে তার
ছোট্ট ঘরে ,
যদিও তা ছিলো ছনের
নড়বড়ে ।
তবুও সুখ ছিলো সেথায়
উপচে  পড়া ,
ছিলো বাবা ছিলো মা তার
সুখে ভরা ।
একটি ছোট বাছুর আর
দুধেল গাঁই,
ছাগল ছানা নাম  ছিলো তার
ছোট্ট টুপাই ।
কি আদরের মিনি বিড়াল
তুলতুলে ,
হাঁসগুলো সব  ফিরতো ঘরে
হেলেদুলে ।
শান্তি নামের এই মেয়েটির
ছোট্ট ঘরে ,
সুখ যেনো তার চারপাশে
উপচে  পড়ে ।
হঠাৎ একদিন কি থেকে কি
হয়ে গেলো ,
সবই যেনো হয়ে গেলো
এলো-মেলো ।
সর্বনাশা বন্যা এলো
গ্রাম জুড়ে ,
ধুয়ে-মুছে নিয়ে গেলো
উজার করে ।
ঘুমিয়ে ছিলো শান্তি তখন
মায়ের বুকে,
স্বপ্নে যেনো বিভোর ছিলো
কি এক সুখে ।
ঘুমের মাঝেই ভেসে এলো
একি কোথায় !!!
সেই থেকে সে হেটে বেড়ায়
কোন অজানায় !
মা ! মা !!  করে কেঁদেছে সে
মাত্র কদিন ,
টের পেলো সে দুদিন পরে
জীবন কঠিন ।
দিবে না তো কান্না তাকে
দু-মুঠো ভাত ,
বাঁচতে হলে মেলতে হবে
ছোট্ট এ হাত ।
উঠতে-বসতে তবুও তার
মনে পড়ে ,
আদর ছিলো সুখ ছিলো সেই
ছোট্ট ঘরে ।
মা কি তার বেঁচে আছে ?
কোথায় আছে ?
প্রশ্ন করে পায়না জবাব
নিজের কাছে ।
মা কিন্তু তার বেঁচে আছে
অন্য গ্রামে ,
সবাই তখন চিনে তাকে
ভিন্ন নামে ।
সব হাড়িয়ে পাগলিনী
ঘুরে বেড়ায় ,
ঘুড়ে বেড়ায় কেঁদে বেড়ায়
খুঁজে বেড়ায় ।
কোথায় আমার সাত রাজার ধন
শান্তি মনি ?
ছোট্ট ঘরে সেই ছিলো মোর
সোনার খনি ।
চাই না বাড়ী ধন-সম্পদ
শুধূই যে চাই ,
আমার বুকের শান্তি শুধু
খুঁজে বেড়াই ।
দুঃখ আমার থাকবে না তো
একটু খানি ,
হে খোদা দাও ফিরিয়ে আমার
শান্তি মনি ।
মায়ের হ্নদয় যেনো সে এক
মরুভূমি ,
কোথায় আমার শান্তি তুমি ?
কোথায় তুমি?
অনেক গ্রাম আর উপশহর
ঘুড়ে ঘুড়ে ,
অবশেষে পৌঁছে গেলো
এই শহরে ।
ওমা ! এযে বড় বড়
দালান-কোঠা !!
সেথায় মানুষ থাকে যত
মোটা মোটা !
গাড়ী-বাড়ী টাকা-পয়সার
ঝনঝনানি ,
হাত বাড়ালেও বের করেনা
একটু খানি ।
একি আজব শহরে সে
উঠলো এসে ?
অনেকটা পথ পাড়ি দিয়ে
একোন দেশে ?
আস্তে-আস্তে টের পেলো সে
আছে আছে ,
আমার মত আরো মানুষ
আগে-পিছে ।
ভেসে আসা ,স্বজন হারা
নিস্ব তারা ,
অশ্রুভেজা মুখগুলো সব
প্রান  কাড়া ।
আত্নীয়রই মত সবাই
যদিও পর ,
সবাই তারা চাল-চুলোহীন
নাই বাড়ী ঘর ।
নয়টি বছর এমনিভাবে
কেটে যে যায় ,
তবু মা তার সাত রাজার ধন
খুঁজে বেড়ায় ।
নয়টি বছর কম সময় নয়
অনেক সময় ,
শান্তি আমার এখন অনেক
বড় নিশ্চয় !
যদিও পাই চিনতে কি আজ
পারবো তারে ?
মায়ের মনে প্রশ্ন আসে
বারে বারে ।
এমনি একদিন ঘুরতে ঘুরতে
মতিঝিলে ,
হাজার মানুষ করছে সেথায়
কিল-বিলে ।
দোকান থেকে কিনছিলো মা
চিড়া-মুড়ি,
পাশে একটি মেয়ে ছিলো
উনিশ-কুড়ি ।
কিসের টানে মা যে সেথায়
দাঁড়িয়ে থাকে ,
অনেক দ্বিধায় অনেক আশায়
কাছে ডাকে ।
সুধায় তারে ভয়ে ভয়ে
নাম কি তোমার ???
অবাক হয়ে বলে নাম যে
শান্তি আমার ।
কে-গো তুমি চেনা চেনা
লাগে তোমায় !
দ্বিধা-দন্দ স্বপ্ন জাগে
মনের কোনায় ।
চিনতে আমি পেরেছি গো
মা   তোমায়   !
কত বছর খুঁজেছি যে
গ্রাম শহরে ।
জড়িয়ে ধরে মেয়েকে তার
বুকের ভেতর ,
অশ্রু হয়ে গড়িয়ে পরে
ব্যথার পাথর ।
এমনি ভাবে মা-মেয়েতে
মিলন হলো ,
ছোট্ট সেই প্রিয় গ্রামে
ফিরে গেলো ।
সেই চেনা গ্রাম ঘরটি যদিও
নড়-বড়ে ,
তবূও সুখ যেনো সেথায়

উপচে  পড়ে !!!

নিউ ইয়র্ক

You Might Also Like