জামায়াতের শেষ দিনের হরতাল চলছে

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর আমীর মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির আদেশের প্রতিক্রিয়ায় দলটির ডাকা দ্বিতীয় দফার ৪৮ ঘন্টার দ্বিতীয় দিনের হরতাল চলছে। আজ রবিবার সকাল ৬টা থেকে শুরু করে মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত দ্বিতীয় দফার এ হরতাল পালন করছে জামায়াতে ইসলামী।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে শুক্রবার সকাল ৬টা পর্যন্ত প্রথম দফায় ২৪ ঘন্টার হরতাল পালন করেছে দলটি।

গত বুধবার আান্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর ফাঁসির আদেশ ঘোষণার পরপর রায়ের প্রতিক্রিয়ায় বৃহস্পতি, রবিবার ও সোমবার দুই দফায় ৭২ ঘন্টার হরতালের ডাক দেয় জামায়াত।

দ্বিতীয় দফার হরতালের দ্বিতীয় দিন সোমবার সকাল থেকে রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে হরতালের সমর্থনে বিক্ষিপ্ত মিছিল ও পিকেটিং করেছে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা।

হরতালের সমর্থনে রাজধানীর যাত্রাবাড়ির কাজলা এলাকায় সকাল সাড়ে ৭টায় মিছিল করেছে জামায়াত শিবির নেতাকর্মীরা। এসময় একটি বাস ভাংচুর করে তারা। এসময় পুলিশ দুই শিবির কর্মীকে আটক করেছে।

এছাড়া তেজগাঁওয়ের লিঙ্করোড, চকবাজার, এলাকায় পুলিশি ব্যাপক প্রহরার মধ্যেও মিছিল করেছে জামায়াত শিবির নেতাকর্মীরা। এদিকে তেজগাঁও লিঙ্করোড থেকে বেশ কয়েকটি ককটেল উদ্ধার করেছে পুলিশ।

হরতালে রাজধানীতে ব্যক্তিগত গাড়ি চলাচল বন্ধ। গণপরিবহণ চলাচল করলেও একেবারেই কম। তবে ওইসব যানবাহনে যাত্রীসংখ্যাও তুলনামূলক কম দেখা যায়। গাবতলী, সায়েদাবাদ ও মহাখালী থেকে দূরপাল্লার কোন যান ছেড়ে যায়নি। একইভাবে দেশের কোন স্থান থেকে দূরপাল্লার কোন যান ঢাকায় প্রবেশ করেনি। এছাড়া ট্রেন ও লঞ্চ চলাচল করলেও যাত্রী সংখ্যা কম থাকায় নির্ধারিত সময়ে এ যানগুলো গন্তব্যের উদ্দেশ্যে ছেড়ে ছাড়েনি।

হরতালকে ঘিরে রাজধানী ঢাকায় কয়েক স্তরের নিরাপত্তাবলয় গড়ে তোলা হয়েছে। প্রতিটি মোড়ে মোড়ে অতিরিক্ত পুলিশ ও  র‌্যাব মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া সাদা পোশাকের পুলিশ, ডিবির নজরধারী জোরদার করা ছাড়াও বিজিবি, পুলিশ, র‌্যাবের টহল বাড়ানো হয়েছে।

রাজধানীর বাইরে রাজশাহী, চট্টগ্রাম, সিলেট, খুলনাসহ বেশ কয়েকটি এলাকাকে ঝুঁকিপূর্ণ ধরে সেখানে বিজিবি মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া আজ জামায়াতের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ কামারুজ্জামানের আপিলের চূড়ান্ত রায়কে ঘিরে রাজধানীসহ বিভিন্ন দেশের বিভিন্ন এলাকায় বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

এদিকে আমাদের প্রতিনিধিরা জানায়, দেশের বিভিন্ন এলাকায় হরতালের সমর্থনে মিছিল ও পিকেটিং করেছে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা। হরতালে আভ্যন্তরীণ ও দূরপাল্লার যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। বেশীর ভাগ দোকান ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অফিস, ব্যাংক-বীমা খোলা থাকলেও উপস্থিতি কম।
চট্টগ্রাম, সিরাজগঞ্জ, পাবনা, লক্ষ্মীপুর, সিলেট, রংপুর, খুলনাসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় সড়কে অগ্নিসংযোগ করে মিছিল করেছে জামায়াত নেতাকর্মীরা।

You Might Also Like