মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে যত অভিযোগ

মীর কাসেম আলীর বিরুদ্ধে যে ১৪টি অভিযোগ আনা হয়েছে তার  সবগুলোর সঙ্গেই হয় তার নেতৃত্ব অথবা  সরাসরি সম্পৃক্ততার অভিযোগ আনা হয়েছে।

১ নং অভিযোগ : মীর কাসেম আলীর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ৮ নভেম্বর ওমক্তুল ইসলাম চৌধুরীকে চাকতাই ঘাট থেকে অপহরণ করা হয়।

এরপর তাকে কয়েক দফায় চট্টগ্রামের আন্দর কিল্লাস্থ ডালিম হোটেল, পাঁচলাইশ থানার সালমা মঞ্জিল এবং একটি চামড়ার গুদামে নিয়ে নির্যাতন করা হয়।

২ নং অভিযোগ: আসামীর নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ১৯ নভেম্বর চাকতাই থেকে লুৎফর রহমান ফারুককে অপহরণ করে ডালিম হোটেলে নিয়ে নির্যাতন করা হয় এবং বাড়িঘরে আগুন দেয়া হয়।

৩ নং অভিযোগ : ২২ অথবা ২৩ নভেম্বর আসামীর নেতৃত্বে জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরীকে তার কদমতলা বাসা থেকে ধরে নিয়ে ডালিম হোটেলে নির্যাতন করা হয়।

৪ নং   অভিযোগ :  ডাবলমুরিং থানায় সাইফুদ্দিন খানকে তার নিজ বাসা থেকে ধরে নিয়ে ডালিম হোটেলে আল বদর বাহিনী কর্তৃক নির্যাতন।

৫ নং অভিযোগ : ২৫ নভেম্বর আনোয়ারা থানার আব্দুল জব্বারকে  তার নিজ বাসা থেকে ধরে নিয়ে ডালিম হোটেলে মীর কাসেম আলীর সামনে হাজির করা হয়। এরপর তাকে নির্যাতন করে ছেড়ে দেয়া হয়।

৬ নং অভিযোগ : চট্টগ্রাম শহরের একটি চায়ের দোকান থেকে হারুনুর রশিদ নামে একজনকে ধরে নিয়ে ডালিম হোটেল এবং সালমা মঞ্জিলে নির্যাতন করা হয়।

৭ নং অভিযোগ : মীর কাসেম আলীর নেতৃত্বে সাত/আট জন যুবক ডাবলমুরিং থানা থেকে সানাউল্লাহ চৌধুরী,  হাবিবুর রহমান, ইলিয়াসকে  ধরে নিয়ে ডালিম হোটেলে নির্যাতন করা হয়।

৮ নং অভিযোগ : ২৯ নভেম্বর রাতে নুরুল কুদ্দুস, মো : নাসির, নুরুল হোসেনসহ চারজনকে অপহরণ করে ডালিম হোটেলে নিয়ে নির্যাতন।

৯ নং অভিযোগ : ২৯ নভেম্বর সৈয়দ মো : এমরান হোসেন, কামাল উদ্দিন, জামালউদ্দিন, সরওয়ার উদ্দিন,  গোলাম কিবরিয়া, গোলাম রহমান এ ছয় জনকে অপহরণ ও নির্যাতন।

১০ নং অভিযোগ : আসামীর নির্দেশে মো : যাকারিয়া, স্কানদার আলম, চারজনকে অপহরণ ও নির্যাতন।

১১ নং অভিযোগ : শহীদ জসিম উদ্দিনসহ ছয় জনকে অপহণের পর নির্যাতন করা হয়। এতে জসিমসহ পাঁচজন নিহত হয় এবং  পরে লাশ গুম করা হয়। ঈদের দিনের পর জসিমকে অপহরণ করে ডালিম হোটেলে নির্যাতন করা হয়।

১২ নং অভিযোগ : জাহাঙ্গীর আলম চৌধুরী, টন্টু সেন ও রঞ্জিত দাসকে অপহরণ করে নির্যাতন করা হয়। টন্টু রঞ্জিত দাসকে হত্যা করে তাদের লাশ গুম করা হয়।

১৩ নং অভিযোগ : সুনীল কান্তিকে অপহরণ ও নির্যাতন।

১৪ নং অভিযোগ : নাসির উদ্দিন চৌধুরীকে অপহরণ ও নির্যাতন ।

You Might Also Like