হাসিনা খালেদাকে এক পাল্লায় মাপবেন না : ইনু

তথ্যমন্ত্রী ও জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) সভাপতি হাসানুল হক ইনু বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে নব্য রাজাকার আখ্যা দিয়ে বলেছেন, ‘জঙ্গিবাদ ও রাজাকারদের চীরতরে কবর দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে এ দেশে কোনো নব্য রাজাকারকে রাজনীতি করতে দেওয়া হবে না।’

বাংলাদেশ ছাত্রলীগ (জাসদ) এ সাধারণ ছাত্রছাত্রীদের যোগদান উপলক্ষে সোমবার বিকেলে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির ভাষণে তিনি এ সব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার এই ৪২ বছরে তারা জাতির কাছে হাতজোড় করে ক্ষমা চায়নি। কারণ ওরা বদলায় না। বাংলাদেশে কিছু কুলাঙ্গার আছে যারা শহীদ মিনার ভাঙ্গতে চায় এবং যারা বাংলা ভাষায় কথা বলতে চায় না।’

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘জঙ্গিবাদ দেশের শত্রু। ইতিহাসের শত্রু এবং মানুষের শত্রু। এদের সঙ্গে যারা হাত মেলায় তারা নব্য রাজাকার। কতিপয় বুদ্ধিজীবীল উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘হাসিনা খালেদাকে এক পাল্লায় মাপবেন না। গণতন্ত্রের পক্ষে কথা বললে খুনিদের পক্ষে ওকালতি করা যায় না। যারা খুনি রাজাকারদের পক্ষে কথা বলবেন তাদের জন্য এ দেশে রাজনীতির দরজা বন্ধ হয়ে যাবে।’

জঙ্গিবাদ, একাত্তরের খুনি ও যুদ্ধাপরাধীদের বর্জন করে নব্য রাজাকারের খাতা থেকে নাম কাটিয়ে রাজনীতিতে আসার জন্য অভিমত ব্যক্ত করেন তথ্যমন্ত্রী।’

হাসানুল হক ইনু বলেন, ‘জাসদ মাঝামাঝি চলে না। জাসদ জঙ্গিবাদের শাপ রাখতে দেবে না। মাঝামাঝি কোনো পথ নেই। হয় স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র পক্ষে না হয় যুদ্ধাপরাধী আর জঙ্গিবাদের পক্ষে নামুন। জঙ্গিবাদ রাজাকার ও নব্য রাজাকারদের বিরুদ্ধে শেষ লড়াইয়ে অংশ নিন। দেশে জাসদকে বাদ দিয়ে ১৪ দল, মহাজোট, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন এবং সরকার গঠিত হয়নি এবং যারা জাসদকে বাদ দিতে চেয়েছিল তারাই ইতিহাসের আস্তাকুড়ে নিক্ষেপ হয়েছে।’
ইনু বলেন, ‘যতদিন না দেশে পরিপূর্ণভাবে জাসদ সরকার গঠিত হবে ততদিন সমাজ থেকে বৈষম্য যাবে না।’

রাজধানীর কর্নেল তাহের মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন জাসদের সাধারণ সম্পাদক শরীফ নূরুল আম্বিয়া, জাসদের সাংগঠনিক সম্পাদক নূরুল আখতার, ওবায়দুর রহমান চুন্নু, শওকত রায়হান ও করিম সিকদার।

অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় যুব জোটের সভাপতি রোকুনুজ্জামান রোকন ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি শরীফুল কবির স্বপন। যোগদানকারীদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সি এম মারুফ হোসেন প্রিন্স। সভাপতিত্ব করেন ছাত্রলীগের সভাপতি মুহাম্মদ সামছুল ইসলাম সুমন। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ আয়োজিত এই সভাটির সঞ্চালকের দায়িত্ব পালন করেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান আলী সাজু। সি এম মারুফ হোসেন প্রিন্স ও মো. রুবেল হোসেনর নেতৃত্বে পাবনা, রাজবাড়ীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে সাধারণ ছাত্রছাত্রীরা ছাত্রলীগে যোগ দেন।

You Might Also Like