অন্ধ্র প্রদেশে আঘাত হেনেছে হুদহুদ

ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের বন্দর নগরী বিশাখাপত্তমের কৈলাসগিরিতে আঘাত হেনেছে ঘূর্ণিঝড় ‘হুদহুদ’। আজ রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এনডিটিভির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ঘূর্ণিঝড়টি আঘাত হানার সময় বাতাসের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় প্রায় ২০০ কিলোমিটার।

ঘূর্ণিঝড়ে প্রাণহানি এড়াতে এরই মধ্যে অন্ধ্র প্রদেশের উপকূলীয় এলাকা থেকে প্রায় চার লাখ মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

ভারতীয় আবহাওয়া দপ্তর বলছে, হুদহুদের বিস্তার প্রায় ৩০ কিলোমিটার।

ঘূর্ণিঝড়ের সঙ্গে স্বাভাবিকের চেয়ে উঁচু জোয়ারের আশঙ্কায় উড়িষ্যা ও অন্ধ্রপ্রদেশের উপকূলীয় এলাকা থেকে চার লাখ মানুষকে ইতোমধ্যে সরিয়ে নিয়েছে ভারত সরকার।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে বিশাখাপত্তম ও উড়িষ্যার গানজাম এলাকায় প্রচণ্ড ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে প্রবল বৃষ্টি হচ্ছে বলে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানিয়েছে।

ঝড়ো হওয়ায় বিশাখাপত্তমে গাছ ও বিজ্ঞাপনের বিলবোর্ড ভেঙে পড়ে বিভিন্ন স্থানে সড়ক অবরুদ্ধ হয়ে পড়েছে। তার ছিঁড়ে বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে বিদ্যুৎ সরবরাহ।

প্রবল বৃষ্টিতে দৃষ্টিসীমা ৫শ’ মিটারের নিচে নেমে আসায় বেশ কয়েকটি বিমান ও ট্রেনের যাত্রা বাতিল করা হয়েছে।

ভারতীয় আবহাওয়া বিভাগ বলছে, স্থলভাগে আঘাত হানার পর আরো ছয় ঘণ্টা তাণ্ডব চলতে পারে হুদহুদ। পরবর্তী ছয় ঘণ্টায় ঘূর্ণিঝড়টি ধীরে ধীরে দুর্বল হয়ে আসতে পারে।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ছত্তিশগড় ও উড়িষ্যার উত্তরাঞ্চলে প্রবল বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। দক্ষিণ ছত্তিশগড়, তেলেঙ্গানা ও দক্ষিণ উড়িষ্যায়ও ভারি বৃষ্টি হতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

ভারতীয় সেনবাহিনী ও নৌবাহিনীর কয়েকটি দলকে উদ্ধার ও ত্রাণ কাজ চালানোর জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে। ভারতীয় কোস্ট গার্ডের ১৭টি জাহাজ, নয়টি বিমান এবং ন্যাশনাল ডিজাস্টার রেসপন্স ফোর্সের ৪৪টি দলের ২ হাজার উদ্ধারকর্মীকে উপদ্রুত অঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়ে হতাহতের ঘটনা এড়াতে সংশ্লিষ্ট রাজ্য সরকারগুলোর সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করতে কর্মকর্তাদের নির্দেশ দিয়েছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সাগর উত্তাল থাকায় চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সর্তকতা সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে বাংলাদেশের আবহাওয়া অধিদপ্তর।

You Might Also Like