মার্কিন ব্যাংকে রহস্যময় সাইবার হামলা: তথ্য গেছে অর্থ নয়!

আমেরিকার সর্ববৃহৎ ব্যাংক জেপি মরগ্যানে রহস্যময় সাইবার হামলা চালিয়ে সাত কোটি ৬০ লাখ পরিবার এবং ৭০ লাখ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের  তথ্য হাতিয়ে নিয়েছে হ্যাকররা। পর্যায়ক্রমিক এ সব হামলা জুন থেকে আগস্ট মাসের মধ্যে চালানো হয়েছে।

নাম, ইমেলই ঠিকানা, টেলিফোন নম্বর এবং বাড়ির নম্বর সহজেই হাতিয়ে নিলেও সোশ্যাল সিক্যুরিটি বা পাসওয়ার্ডের মতো স্পর্শকাতর তথ্য স্পর্শ করে নি হ্যাকাররা। এ ছাড়া, আক্রান্ত পরিবার বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর অর্থও নিরাপদে রয়েছে বলে ব্যাংক জানিয়েছে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ পর্যন্ত কোনো অর্থ জালিয়াতির তৎপরতাও ব্যাংকের নজরে পড়ে নি।

অবশ্য, জেপি মরগ্যান বলেছে, ক্ষতিগ্রস্ত অ্যাকাউন্টগুলো থেকে অননুমোদিত কোনো অর্থ লেনদেন হলে তার দায় সংশ্লিষ্ট গ্রাহকদের ওপর বর্তাবে না।

মার্কিন অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই এ ঘটনার তদন্তে নেমেছে। তবে ক্ষতিগ্রস্ত অ্যাকাউন্ট থেকে অর্থ সরিয়ে নেয়ার কোনো চেষ্টা হ্যাকাররা করে নি বলে  এ সাইবার হামলাকে রহস্যময় হিসেবে মন্তব্য করেছে নিউ ইয়র্ক টাইমস।

এ  ছাড়া, হামলায় কারা জড়িত সে বিষয়েও এখনো পরিষ্কার কোনো ধারণা পাওয়া যায় নি। অবশ্য নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ ও নিরাপত্তা কর্মকর্তাদের  বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদ মাধ্যমগুলো বলছে, রাশিয়াসহ অন্যান্য দেশ এ হামলায় জড়িত থাকতে পারে। এ ছাড়া, ইউরোপের দক্ষিণাঞ্চলীয় কোনো কোনো দেশও এ হামলা চালাতে পারে। অবশ্য সাইবার হামলার ঘটনা ঘটলেই মার্কিন মিডিয়া তার দায় রাশিয়া বা চীনের ওপর চাপিয়ে দেয়ার চেষ্টা করে।

এদিকে, সাইবার হামলার পর জেপি মরগ্যান সব পাসওয়ার্ড বদলে দেয়াসহ ক্ষতিগ্রস্ত অনেক অ্যাকাউন্টও বন্ধ করে দিয়েছে। চলমান তদন্তের বিষয়ে অবহিত একাধিক সূত্র বলেছে, ব্যাংকটির সব সফটওয়্যার বদল করতে কয়েক মাস লেগে যাবে। ফলে হ্যাকাররা আবারো ব্যাংকটিতে সাইবার হামলার পথ খুঁজে পাবে বলে আশংকা করা হচ্ছে।

You Might Also Like