হংকংয়ে হস্তক্ষেপ করবেন না: আমেরিকাকে চীনের হুঁশিয়ারি

হংকংয়ে যেকোনো ধরনের হস্তক্ষেপের বিরুদ্ধে আমেরিকাকে সতর্ক করে চীন বলেছে, “এটা সম্পূর্ণ অভ্যন্তরীণ বিষয়ে; চীনা ভূখণ্ডে কোনো বেআইনি তৎপরতা সহ্য করা হবে না।”

হংকংয়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার দাবিতে যখন বিক্ষোভ-সমাবেশ হচ্ছে তখন চীন এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করল।

চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই গতকাল (বুধবার) ওয়াশিংটনে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরিকে স্পষ্ট করেই বলেন, “চীন সরকার অত্যন্ত পরিষ্কার ও দৃঢ়ভাবে তার অবস্থান ঘোষণা করেছে। হংকয়ের ঘটনাবলী সম্পূর্ণভাবে চীনের অভ্যন্তরীণ বিষয়।”

ওয়াং বলেন, সব দেশেরই উচিত চীনের সার্বভৌমত্বকে সম্মান করা এবং এটা হচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্পর্কের মৌলিক নীতি। তিনি আরো বলেন, “আমি বিশ্বাস করি কোনো দেশে বা সমাজে কারোরই এমন কোনো বেআইনি কাজ করা উচিত নয় যার কারণে রাষ্ট্রীয় শৃঙ্খলা বিনষ্ট হয়। কিন্তু আমেরিকা হংকং পরিস্থিতিতে তাই করছে।”

এ সময় ওয়াংয়ের পাশে দাঁড়িয়েই কেরি সাংবাদিকদের বলেন, “মৌলিক নীতি মেনে আন্তর্জাতিক আইন অনুসারে আমরা হংকংয়ের জনগণের ভোটাধিকারের প্রতি সমর্থন জানাচ্ছি।” তিনি আরো বলেন, হংকংয়ের স্থিতিশীলতা ও উন্নতির জন্য সর্বোচ্চ পর্যায়ের স্বায়ত্বশাসন এবং আইনের শাসন প্রয়োজন।

হংকংয়ের বর্তমান প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিওয়াই লিয়ুং-কে ২০১৭ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় রাখতে চায় চীন সরকার। ওই বছরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে মাত্র চীন মনোনীত তিনজন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন বলে আইন করেছে বেইজিং। এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করছে হংকংয়ের জনগণ। তারা বলছে, সিওয়াই লিয়ুং-কে এখনই পদত্যাগ করতে হবে। তবে, বিক্ষোভকারীদের এ দাবি মানতে নারাজ চীন।

১৯৯৭ সালে বৃটিশ উপনিবেশমুক্ত হয় হংকং এবং চীনের কাছে হংকংকে হস্তান্তর করে বৃটেন।

You Might Also Like