রাজশাহীতে জামায়াত-পুলিশ সংঘর্ষ, আহত ১৫

রাজশাহীতে জামায়াতে ইসলামী ও ছাত্রশিবিরের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে পুলিশের দফায় দফায় ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়েছে।

বুধবার দুপুরে নগরীর কাদিরগঞ্জ ও অলোকার মোড় এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশের গুলিতে ১৫ জামায়াত-শিবির কর্মী আহত হয়েছে। তবে কাউকে আটক করতে পারেনি পুলিশ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে বুধবার দুপুর ১২টার দিকে নগরীর নিউ মার্কেটের সামনে থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে নগর জামায়াত-শিবির কর্মীরা। মিছিলটি নগরীর অলোকার মোড়ে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে সমাবেশ চলছিলো।

খবর পেয়ে বোয়ালিয়া মডেল থানা পুলিশের একটি টহল দল সেখানে পৌঁছে জামায়াত-শিবির কর্মীদের লক্ষ্য করে গুলি চালায়। এ সময় বিক্ষোভকারীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ও একটি ককটেল বিস্ফোরণ ঘট‍ায়। পরে অতিরিক্ত পুলিশ এসে আরো বেশ কয়েক রাউন্ড রাবার বুলেট, টিয়ার শেল ও শর্টগানের গুলি ছুঁড়ে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেয়।

এরপর নগরীর কাদিরগঞ্জ মহিলা কলেজ রোড দিয়ে বেরিয়ে যাবার সময় পুলিশ তাদের ঘিরে ফেলে। এ সময় পুলিশের সঙ্গে জামায়াত-শিবির কর্মীদের ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ তাদের লক্ষ্য করে শর্টগানের গুলি ছুঁড়লে পুলিশকে লক্ষ্য করে তারাও ইট-পাটকেল ও বেশ কয়েকটি ককটেল নিক্ষেপ করে।

আলাদা এ ঘটনায় পুলিশের গুলিতে অন্তত ১৫ জামায়াত-শিবির কর্মী আহত হয়েছেন বলে দাবি করেছেন জামায়াত নেতারা। তবে তাৎক্ষণিকভাবে তাদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি। তাদের নগরীর বিভিন্ন হাসপাতাল-ক্লিনিকে নেওয়া হয়েছে বলে জানান তারা।

তবে এ ঘটনায় কেউ আহত হয়নি বলে দাবি করেছেন রাজশাহী মহানগর পুলিশের বোয়ালিয়া জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) ইফতেখায়রুল ইসলাম। তিনি বলেন, মিছিলের চেষ্টা করায় পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দিয়েছে। এ সময় পুলিশকে লক্ষ্য করে তারা অন্তত সাতটি ককটেল নিক্ষেপ করেছে। পুলিশও ১৯ রাউন্ড শর্টগানের গুলি ছুঁড়েছে। পরে জামায়াত-শিবির কর্মীদের আটক করতে ওই এলাকায় অভিযান চালানো হয়েছে। জড়িত কাউকে আটক করা যায়নি বলে জানান এসি।

You Might Also Like