বাঘখেকো মানুষ!

মেনুতে বাঘের মাংস, গ্রামে মারামারি। কতই রঙ্গ দেখি দুনিয়ায়। রঙ্গ না বলে ঘৃণ্য বলাই সবচেয়ে যুক্তিযুক্ত হবে। এক সময় মানুষখেকো বাঘের উপদ্রবের কথা নিয়ে খবর লেখা হতো, এখন উল্টোটা হচ্ছে। মানুষ বাঘকেও খাদ্য তালিকা থেকে বাদ দিচ্ছে না! যারা এমন কাণ্ড ঘটিয়েছেন, তারা নিতান্ত অসভ্য-বর্বর নয়। অবশ্য বর্বর না বলে আর কীই বা বলা যায়? না হলে বাঘ মেরে ছাল ছাড়িয়ে তার মাংস খায় কোনও মানুষ! শুধু খাওয়াই নয়, মাংসের ভাগ পাওয়া নিয়ে আবার রীতিমতো ঝগড়া-মারামারিও করে।

ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীকাকুলমের কোভিরি গ্রামে। বন দফতর সূত্রে খবর, গত শনিবার বাঘটিকে মারা হয়। অবৈধ ভাবে ধানখেতের চার দিকে বৈদ্যুতিক তার দিয়ে ঘিরে রেখেছিল গ্রামবাসীরা। সেখানে বাঘটি বিদ্যুত্স্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হয়। তারপর সেটিকে মেরে ছাল ছাড়িয়ে তার মাংসও ভাগ করে। মাংসের ভাগ পাওয়া নিয়ে দু’ দল গ্রামবাসীর মধ্যে মারামারিও লেগে যায়। ঘটনায় আপাতত তিন জনকে আটক করা হয়েছে। ঘটনার পর বাঘের হাড়গোড় মাটিতে পুঁতে ফেলে।

বন ধপতরের কর্মীরা খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে এসে মাটি খুঁড়ে সেগুলি উদ্ধার করে পরীক্ষাগারে পাঠায়। পরীক্ষার পরই পরিষ্কার হবে বাঘটির বয়স কত ছিল এবং কোন প্রজাতির ছিল। তবে বাঘটির ছাল এবম নখ পাওয়া যায়নি। ধৃতদের বিরুদ্ধে ওয়াইল্ড লাইফ প্রোটেকশন আইন ১৯৭২-র অনুযায়ী মামলা রুজু করা হয়েছে। পুলিশের অনুমান এর সঙ্গে আরও অনেক লোক জড়িত রয়েছে। তাদের খোঁজ চলছে। চোরাশিকারিদের সঙ্গেও এদের যোগ রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

You Might Also Like