জেএমবি’র ভারপ্রাপ্ত আমির তাসনিমসহ গ্রেফতার ৭

রাজধানী ঢাকার টঙ্গী এলাকা নিষিদ্ধঘোষিত জামাআতুল মুজাহিদীন বাংলাদেশের (জেএমবি) ভারপ্রাপ্ত আমির তাসনিমসহ সাত সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিএমপি)।

ডিএমপি’র উপ-কমিশনার মাসুদুর রহমান (মিডিয়া) জানান, জেএমবির একটি দল নাশকতার পরিকল্পনা করছে-এমন গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশ তুরাগ এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করে।

তিনি আরো জানান, রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নাশকতা চালনার প্রস্তুতি নিচ্ছিল বলে প্রাথমিকভাবে জানা গেছে। এ সময় বিপুল পরিমাণ বিস্ফোরক দ্রব্যও জব্দ করা হয়েছে।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হবে বলে তিনি জানান।

১৯৯৮ সালের জামালপুরের শায়খ আব্দুর রহমান জেএমবি প্রতিষ্ঠা করেন। ২০০১ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরার সিনেমা হল ও সার্কাস প্যান্ডেলে প্রথম নাশকতা চালায় তারা। ২০০৪ সালের ১ এপ্রিল ‘জাগ্রত মুসলিম জনতা’ নামে রাজশাহীর তিন উপজেলায় কথিত চরমপন্থী নিধন অভিযানে নামে সংগঠনটি। ২০০৫ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি সরকার জেএমবিকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করে। তবে একই বছরের ১৭ আগস্ট দেশের ৬৩ জেলায় একযোগে ৫০০ বোমা ফাটিয়ে নিজেদের অস্তিত্ব জানান দেয়। হামলায় দুই জন নিহিত ও ১০৪ জন আহত হয়।

১৭ আগস্টের পর শুরু হয় একের পর এক আত্মঘাতী জঙ্গী হামলা। এসব হামলায় বিচারক, আইনজীবী, পুলিশ ও সরকারী-বেসরকারী কর্মকর্তাসহ মারা যায় ৩৩ জন। এরপরই শুরু হয় জেএমবি বিরোধী অভিযান। গ্রেফতার করা হয় জেএমবি’র শীর্ষনেতা শায়খ আব্দুর রহমান, সিদ্দিকুর রহমান ওরফে বাংলাভাই, আতাউর রহমান সানি, খালেদ সাইফুল্লাহসহ সাড়ে চারশ’ সন্ত্রাসী।

২০০৭ সালের ৩ মার্চ জেএমবির প্রধান শায়খ আবদুর রহমান, দ্বিতীয় শীর্ষ নেতা সিদ্দিকুল ইসলাম ওরফে বাংলা ভাইসহ শীর্ষ ছয় নেতার ফাঁসি কার্যকর করা হয়।

You Might Also Like