যুক্তরাজ্যের সঙ্গে থাকবে স্কটিশরা

যুক্তরাজ্যের সঙ্গে থাকার পক্ষেই জনমত দিয়েছেন স্কটল্যান্ডের বেশিরভাগ নাগরিক। দেশটির ৩২টি কাউন্সিলের মধ্যে ৩০টির ফলাফলে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে থাকার পক্ষে ভোট পড়েছে ১৮ লাখ ৭৭ হাজার ২৫২টি। অন্যদিকে স্বাধীনতার পক্ষে ‘হ্যাঁ’ ভোট দিয়েছেন ১৫ লাখ ১২ হাজার ৬৮৮ জন।

এর মধ্য দিয়ে স্কটল্যান্ড যুক্তরাজ্যের মধ্যে থাকবে নাকি ৩০৭ বছরের পুরনো ব্রিটিশ ইউনিয়ন ভেঙে বের হয়ে স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে- তার সমাধান হল।

স্কটল্যান্ডের মোট ভোটারের ৯৭ শতাংশ, অর্থাৎ ৪২,৮৫,৩২৩ জন ভোট দেওয়ার জন্য তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন।

স্কটল্যান্ডের ফার্স্ট মিনিস্টার অ্যালেক্স স্যামন্ড সরকারিভাবে এই ফলাফল ঘোষণা করেছেন। স্কটল্যান্ডের সমস্ত নাগরিকদের এই ফল মেনে নেয়ার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন স্বাধীনতার পক্ষের এই নেতা। ফলাফল ঘোষণার পর ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, সব সমস্যা সমাধানে একসাথে থাকার পক্ষেই এই ফলাফল এসেছে। এছাড়া স্কটল্যান্ডের ক্ষমতা আরও বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন ক্যামেরন।

৩০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে ইংল্যান্ডের সাথে থাকবার পর স্কটল্যান্ড আলাদা একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে কিনা তা নির্ধারনে গণভোটের আয়োজন করা হয়। বৃহস্পতিবার গণভোটে অংশ নিয়েছে সেখানকার চল্লিশ লাখের বেশি ভোটার। স্বাধীনতার প্রশ্নে কি সিদ্ধান্ত নিলো স্কটিশরা, সেই উত্তর জানা যাবে আরো কয়েকে ঘণ্টা বাদে। এই গণভোটে অংশ নিতে ৯৭ শতাংশ ভোটার নাম তালিকাভুক্ত করেছেন।

স্কটল্যান্ডের নির্বাচনী ইতিহাসে এমন ঘটনা আগে আর কখনই দেখা যায়নি। এই প্রথমবারের মত ১৬ এবং ১৭ বছর বয়সী ভোটাররা ভোট দেয়ার সুযোগ পেয়েছেন।

বৃহস্পতিবারের গণভোটে ৫৫ শতাংশ জনগণ ‘না’ ভোট অর্থাৎ স্বাধীনতার বিপক্ষে ভোট দিয়েছেন এবং ৪৫ শতাংশ জনগণ স্বাধীনতার পক্ষে ভোট দিয়েছেন। এই ঐতিহাসিক গণভোটে প্রায় ৮০ শতাংশ স্কটিশ ভোট দিয়েছেন। দেশটির ৩২টি কাউন্সিলের মধ্যে ৩১টির ফলাফলে যুক্তরাজ্যের সঙ্গে থাকার পক্ষে ভোট পড়েছে ১৯ লাখ ১৪ হাজার ১৮৭ টি এবং অপর দিকে স্বাধীনতার পক্ষে ‘হ্যাঁ’ ভোট দিয়েছেন ১৫ লাখ ৩৯ হাজার ৯২০ জন। তিনশো বছরেরও বেশি সময় ধরে যুক্তরাজ্যের অংশ স্কটল্যান্ড।

You Might Also Like