লক্ষ্মীপুরে ১০ জনের ফাঁসি

লক্ষ্মীপুর জেলায় স্কুলছাত্রী সীমা হত্যা মামালায় ১০ জনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছে আদালত। এ রায়ে ১৪ জনকে খালাস দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুর ২টায় জেলা ও দায়রা জয় মঞ্জুরুল বাসিত এ রায় দেন বলে জানিয়েছেন ও আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী জসীম উদ্দিন।

ফাঁসির আসামিরা হলেন- কুমিল্লার মনোহরগঞ্জের আবুল কাসেমের ছেলে হিরণ (২৪), নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার  অনন্তপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে আনোয়ার হোসেন (২৩), লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার শ্রীরামপুর দত্তপাড়া ইউনিয়নের শ্রীরামপুর গ্রামের আ.ছাত্তারের ছেলে নূর আলম প্রকাশ নূরু (২২), নোয়াখালী জেলার সুধারাম থানার লক্ষ্মীনারায়ণপুর গ্রামের মৃত ইউছুফ মহাজনের ছেলে হেদায়েতুল্লাহ সরদার (৫০), নোয়াখালীর সাতখিল উপজেলার ধর্মপুর গ্রামের আবুল কালামের ছেলে নুরুন্নবী (২৭) এরা সবাই বর্তমানে কারাগারে আছেন।

এছাড়া পলাতক আছেন-নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের দহরপাড়া গ্রামের গোলাম রহমানের ছেলে মানিক,(৩০), নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের তালিতপুর গ্রামের নূরুল আমিনেরর ছেলে রাশেদ (২৫), নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের রুদ্রপুর গ্রামের সৈয়দ আহম্মেদের ছেলে সুমন (২০), বেগমগঞ্জের একলাশপুর গ্রামের এনায়েততুল্লার ছেলে সোহেল (২৭)।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৩ সালের ১৮ জুলাই রাতে লক্ষ্মীপুর সদর উপজেলার দয়াপাড়া গ্রামের কৃষ্ণলাল দেবনাথের বাড়িতে ২০/৩০ জনের একদল ডাকাত প্রবেশ করে। তারা অস্ত্রের মুখে বাড়ির সবাইকে জিম্মি করে। তারা স্বর্ণালঙ্কারসহ সব মালামাল লুট করে। এ সময় ডাকাত দল কৃষ্ণলালের নাতনি ও প্রতাপগঞ্জ উচ্চ বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণীর ছাত্রী স্মৃতি রানী নাথ সীমাকে (১২) গণধর্ষণ ও নির্মমভাবে হত্যা করে।

২০১২ সালে ধুহিতা গ্রামের কালা সাধুর বাড়িতে ঢুকে ডাকাতির সময় আসামিরা সবাইকে বেঁধে সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী সীমাকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করেছিল।

You Might Also Like