তিস্তা ব্যারাজ এলাকায় রেড এলার্ট

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধার তিস্তা ব্যারাজ এলাকায় রেড এলার্ট জারি করা হয়েছে। দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তায় বিপদ সীমার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হওয়ায় এই রেড এলার্ট জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, শুক্রবার রাত সাড়ে ৮টায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের রেকর্ড অনুযায়ী তিস্তায় বিপদ সীমার ৫৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে পানি প্রবাহিত হচ্ছে। প্রতিনিয়তই পানি প্রবাহ বেড়ে যাওয়ায় তিস্তা ব্যারাজ নিয়ে অনেকটাই শঙ্কায় পড়েছে কর্তৃপক্ষ।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী হাফিজুল ইসলাম জানান, ভারত থেকে প্রচণ্ড গতিতে পানি বাংলাদেশের দিকে ধেয়ে আসছে। এতে তিস্তা ব্যারাজ এলাকায় পানি বিপদ সীমার ৫৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

ফলে ব্যারাজের উজান ও ভাটিতে অসংখ্য গ্রামের মানুষজন পানিবন্দী হয়ে পড়েছে। ব্যারাজ হুমকির মুখে পড়ায় সব গেট খুলে দিয়ে পানির গতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা চলছে।

ব্যারাজ রক্ষার্থে বাইপাসের আশপাশে বসত বাড়ির লোকজনদের নিরাপদ স্থানে সরে যেতে বলা হচ্ছে। পানির গতি বেড়ে যাওয়ায় যে কোনো মুহূর্তে বাইপাস কেটে দেওয়া হতে পারে। ওই বাইপাস কেটে দেওয়া হলে গোটা লালমনিরহাট জেলা পানিবন্দী হয়ে পড়বে। এজন্যই শুক্রবার সন্ধ্যায় ব্যারাজ এলাকায় রেড এলার্ট জারি করা হয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের ওই কর্মকর্তা আরো জানান, পানি প্রবাহ আর একটু বেড়ে গেলেই বাইপাস কেটে দিয়ে ব্যারাজকে রক্ষা করা হবে। বাইপাস কেটে দিলে লালমনিরহাট জেলার লাখো মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়ার আশঙ্কাও করছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা।

গত দুদিনের ভারি বর্ষণ আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে তিস্তাসহ লালমনিরহাটের সবকটি নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে লালমনিরহাটের ৫ উপজেলার প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন।

পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে নতুন নতুন এলাকা বন্যায় প্লাবিত হচ্ছে। তিস্তা পাড়ের মানুষরা চরম আতঙ্কে নিদ্রাহীন রাত কাটাচ্ছেন।

এদিকে, ব্যারাজের বাইপাস এলাকার লোকজনকে নিরাপদে সড়িয়ে যেতে মাইকিং করা হচ্ছে ।

লালমনিরহাট জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান জানান, তিস্তা ব্যারাজ রক্ষার্থে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সর্বদাই সজাগ রয়েছেন।

You Might Also Like