সিরিয়ার ইদলিবে সরকারি বাহিনীর গোলার আঘাতে নিহত ৯

সিরিয়ার সরকারি বাহিনীর গোলার আঘাতে শনিবার সাত শিশুসহ নয় বেসামরিক লোক নিহত হয়েছে। দেশটির সর্বশেষ বিদ্রোহী ঘাঁটি পাশে প্রস্তাবিত বাফার জোনে এ গোলা বর্ষণ করা হয়।

এক পর্যবেক্ষক একথা জানিয়েছে। খবর এএফপি’র।

ব্রিটেন ভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানায়, সিরিয়ার উত্তরপশ্চিমাঞ্চলীয় ইদলিব প্রদেশের একটি স্কুলের কাছে এই গোলার আঘাতে নিহতদের মধ্যে এক শিক্ষক ও চার স্কুল পড়ুয়া শিশু রয়েছে।

সেপ্টেম্বর মাসে বাশার সরকারের মিত্র রাশিয়া ও বিদ্রোহীদের পক্ষে তুরস্ক ইদলিবের আশপাশের অঞ্চলকে বেসামরিক এলাকা হিসেবে গড়ে তোলার ব্যাপারে একটি চুক্তিতে সম্মত হয়। কোন সশস্ত্র পক্ষই ওই বাফার জোনে প্রবেশ করবে না বলে সম্মত হয় তারা।

কিন্তু জিহাদিরা নির্ধারিত সময় অক্টোবরের মাঝামাঝিতে প্রস্তাবিত বাফার জোন থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করতে অস্বীকৃতি জানালে এই চুক্তি থমকে যায়। এরপর থেকেই ওই এলাকায় অবিরাম গোলা বর্ষণ ও সংঘাত চলছে।

পর্যবেক্ষণকারী সংস্থাটি প্রধান রামি আব্দেল রহমান বলেন, ওই শিক্ষক ও চার শিক্ষার্থী স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার পথে এ হামলা চালানো হয়। ইদলিব প্রদেশের দক্ষিণপূর্বাঞ্চলীয় শহর জারজানাজে এ ঘটনা ঘটে।

এর আগে ২ নভেম্বর একই শহরে সরকারি বাহিনীর গোলার আঘাতে অন্তত পাঁচ বেসামরিক লোক মারা যায়।

২৬ অক্টোবর ইদলিবের আল-রিফা শহরে সরকারপন্থী বাহিনীর গোলার আঘাতে সাত বেসামরিক লোক নিহত হয়।

সিরিয়ার সরকার জানায়, বাফার জোন চুক্তিটি সাময়িক। ইদলিব ধীরে ধীরে সরকারে নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে।
২০১১ সালে শুরু হওয়ার সিরিয়া যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ৩ লাখ ৬০ হাজারের বেশি লোক প্রাণ হারিয়েছে।

You Might Also Like