সেরা দাড়ি শিখ নারীর!

১১ বছর বয়স থেকেই তার দাড়ি বের হওয়া শুরু হয়। সে সময় স্কুলে সহপাঠীদের জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে নিয়মিতই সেভ করতে হতো তাকে। তবে ২৩ বছর বয়সে এসে শিখ ধর্ম গ্রহণ করেন তিনি। তারপর থেকেই দাড়িতে আর হাত দেননি। কেননা শিখ ধর্মানুযায়ী মুখের দাড়ি কামানো নিয়মসিদ্ধ নয়। সে কারণেই তার মুখে শোভা পাচ্ছে আর দশ জন শিখ পুরুষের মত মুখ ভর্তি দাড়ি।

এমনটা একজন পুরুষের ক্ষেত্রে খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু অবাক হওয়ার বিষয় হল, এই ঘটনাটি ঘটেছে একজন নারীর সঙ্গে। হারানাম কাওর নামের এই শিখ নারীর মুখ পুরুষদের মতই শুশ্রুমণ্ডিত। পাশ থেকে দেখে চেনার কোনো উপায় নাই যে তিনি একজন নারী।

যুক্তরাজ্যের হ্যাম্পায়ারশায়ারে আয়োজন করা হবে একটি দাড়ি প্রদর্শনীর। বিশ্বের বাঘা বাঘা সব দাড়িওয়ালাদের স্থিরচিত্র প্রদর্শন করা হবে সেই প্রদর্শনীতে। প্রদর্শনীর আয়োজকরা জানাচ্ছেন যুক্তরাজ্যের সেই শিখ নারীর দাড়ির ছবিও প্রদর্শনীতে স্থান পাচ্ছে। অবশ্য দাড়ির কারণে হারনাম এবারই প্রথম পত্রিকার শিরোনাম হননি। এ বছরের শুরুর দিকে তার দাড়ি নিয়ে গণমাধ্যমে হইচই হয়েছে।

You Might Also Like