রায়হান রিমান্ড শেষে কারাগারে

গণভবনে ঢোকার চেষ্টার অভিযোগে গ্রেপ্তার এস এম রায়হান কবির নামে এক ব্যক্তিকে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

দুই দিনের রিমান্ড শেষে এদিন রায়হান কবিরকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শেরেবাংলা নগর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুর রশিদ সরকার।

আবেদনে বলা হয়, রায়হান রিমান্ডে থাকাকালে তাকে মামলার ঘটনার বিষয়ে সতর্কতার সাথে দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদে আসামি নিকট হতে বেশকিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে। যা পরবর্তীতে তদন্তে যাচাই-বাছাই করে দেখা হচ্ছে। তবে তাকে জিজ্ঞাসাবাদকালে তার কথা-বার্তায় অসংলগ্নতা লক্ষ্য করা যায়। এমতাবস্থায় মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন তদন্ত কর্মকর্তা।

অপরদিকে আসামির পক্ষে তার আইনজীবী আসাদুজ্জামান উজ্জল জামিনের আবেদন করেন। শুনানিতে তিনি বলেন, আসামি একজন মানসিক রোগী। তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট। তার কাছ থেকে কোন তথ্য উদঘাটন করা হয়নি। তিনি ৭ বছর ধরে মানসিক রোগে আক্রান্ত। আমরা তার জামিন মঞ্জুরের প্রার্থনা করছি।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। গত ১৭ নভেম্বর তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

প্রসঙ্গত, গত ১৪ নভেম্বর রাতে গণভবনের দুই নম্বর ফটকের সামনে থেকে রায়হান কবিরকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর ১৬ নভেম্বর এসপিবিএন-২ এর এসআই নয়ন মিয়া বাদি হয়ে শেরেবাংলা নগর থানায় রায়হানকে সন্ত্রাসবিরোধী আইনে আসামি করে মামলা করেন। এজাহারে বলা হয়, রায়হান হিজবুত তাওহীদের নেতা।

এজাহারে বাদি বলেন, ১৪ নভেম্বর রাত ১১টা ২০মিনিটের দিকে জনৈক ব্যক্তি মোটরসাইকেলে (জামালপুর-ল-১১-০৬৩৭) নিজের দুই শিশুকে নিয়ে কর্তব্যরত ফোর্সদের না বলে গণভবনে ঢোকার চেষ্টা করেন। এ সময় সেখানে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা তাকে আটক করেন।

You Might Also Like