চূড়ান্ত পর্যায়ে ফোবানা ২০১৪ সম্মেলনের প্রস্তুতি

ফোবানা ২০১৪ সম্মেলনের বাকী মাত্র আর ২৯ দিন। সম্মেলনের প্রস্তুতি এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে। এই মাত্র জানা গেলো যে সাবিনা ইয়াসমিনের আরো একটি অনুষ্ঠান আছে ফোবানা যে সপ্তাহান্তে হবে সেই একই সপ্তাহান্তে অ্যামেরিকার পূর্ব উপকুলে। তাই তার পক্ষে এতো লম্বা পথ পাড়ি দিয়ে  পশ্চিম উপকুলে (লস এঙ্গেলেস) এসে গান গাওয়া সম্ভব নয়। এজন্য গত কয়েকদিন ধরে অনেক চেষ্টা করেও কোন সমাধান না পাওয়াতে অনেক অনিচ্ছা সত্তেও ফোবানা ২০১৪-র হোস্ট কমিটি তাদের আমন্ত্রিত শিল্পীদের তালিকা থেকে সাবিনা ইয়াসমিনের নাম বাদ দিয়েছেন।  যদিও তারা এ ব্যাপারে মর্মাহত, তারা মনে করেন যে এই বিষয়টা নিয়ে কোন লুকোচুরি না করে সরাসরি সত্যি কথাই বলা ভালো যাতে করে কোন দর্শক না মনে করে যে ফোবানা সাবিনার নাম করে টিকিট বিক্রি করে অন্য শিল্পীদের দিয়ে অনুষ্ঠান করছে। সাবিনা ইয়াসমিন এতোই বড় মাপের একজন শিল্পী যে তিনি একটি ভিডিও বিবৃতি দেবেন তার অপারগতা প্রকাশ করে তার ভক্তদের কাছে যেন তারা তাকে ভুল না বোঝেন।

ফোবানা শুধু বাংলাদেশের শিল্পীদের নিয়ে একটি সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান বা পথমেলা নয়। ফোবানা একটি জাতীয় সংগঠন যার বাৎসরিক অনুষ্ঠানের নামও তুমুল জনপ্রিয়তার কারণে ফোবানা। ফোবানা সব সময়ই চায় উত্তর আমেরিকায় বসবাসরত বাংলাদেশী শিল্পীদের, এদেশে জন্মানো এবং বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের শিল্পীদের একটি জাতীয় পর্যায়ের মঞ্চ দেয়া যেখানে তারা প্রদর্শন করতে পারবে তাদের মেধা। ফোবানাই সেই মঞ্চ। তবে সারাদিন সম্মেলনের নানাবিধ কাজ কর্ম, সেমিনার, বক্তৃতার পর দিন শেষে দু একজন জনপ্রিয় শিল্পীদের গান কার না ভালো লাগে? সেই চিন্তা থেকেই প্রতি বৎসর বাংলাদেশ থেকে দু একজন নামী এবং জনপ্রিয় শিল্পী ফোবানাতে গান গাইতে আসেন।

ফোবানা ২০১৪-তে স্বাস্থ্য বিষয়ক সেমিনার, বিভিন্ন ধরনের স্টল, কিশোর কিশোরীদের নিয়ে অনুষ্ঠান, স্থানীয় শিল্পীদের নিয়ে অনুষ্ঠান, বিভিন্ন শহর থেকে আগত সদস্য সংগঠনদের অনুষ্ঠান, উত্তর আমেরিকায় বসবাসরত বাংলাদেশী শিল্পী ছাড়াও থাকছেন শ্রীকান্ত আচার্য, শুভমিতা, তাজুল ইমাম, লীনা তাপসী, সুমন লাহা, উস্তাদ গীরিশ চ্যাটার্জী এবং বাংলাদেশ থেকে আগত ক্লোজ আপ ওয়ান ২০১২-এর সেরা দশের ভেতর থেকে নয়জন!! জমজমাট এই অনুষ্ঠানগুলো যেন সুষ্ঠু মতো প্রদর্শন করা যায় যে জন্য লস এঞ্জেলেসের ভলান্টীয়াররা দিন রাত কাজ করছেন। নবীন, প্রবীন সবাই একসাথে কাজ করে যাচ্ছেন যাতে কোন ভাবেই লস এঞ্জেলেসের বদনাম না হয়। এমনিতেই কিছু সংখ্যক স্থানীয় লোক সস্তা প্রচারের জন্য একই সময়ে আরো একটি অনুষ্ঠানের আয়োজনের করেছেন। শত প্রতিকূলতার বিরুদ্ধে, অপপ্রচারের বিরুদ্ধে থেকে লস এঙ্গেলেসের বাংলাদেশীরা একটি গোছালো, ছিমছাম তিন দিন ব্যাপী সম্মেলন উপহার দেবার জন্য বদ্ধপরিকর। এজন্য দরকার আপনাদের  সবার সাহায্য ও সহযোগিতা। লস এঞ্জেলেসে একটি সুন্দর ফোবানা সম্মেলন হলে লস এঞ্জেলেসের বাংলাদেশীদেরই সুনাম হবে। বাইরে থেকে যারা আসবেন তারা সোমবার সকালেই চলে যাবেন। থাকবে পরে এই সুনামটুকুই।

You Might Also Like