রুহানি-ইমরান ফোনালাপ : পাকিস্তানকে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে শক্তিশালী করার আগ্রহ

পাকিস্তানের সঙ্গে সকল ক্ষেত্রে বিশেষ করে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সহযোগিতা শক্তিশালী করার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানি। তিনি গত বুধবার রাতে পাকিস্তানের সম্ভাব্য প্রধানমন্ত্রী ও তেহরিকে ইনসাফ পার্টির নেতা ইমরান খানের সঙ্গে এক টেলিফোনালাপে এ আগ্রহ প্রকাশ করেন।

পাকিস্তানের সাম্প্রতিক পার্লামেন্ট নির্বাচনে তেহরিকে ইনসাফ পার্টির বিজয়ে ইমরান খানকে অভিনন্দন জানিয়ে ড. রুহানি আশা প্রকাশ করেন, ইমরানের শাসনামলে ইরান ও পাকিস্তানের সম্পর্ক আগের চেয়ে অনেক বেশি আন্তরিক ও গভীর হবে।

তেহরানের সঙ্গে ইসলামাবাদের সহযোগিতা শক্তিশালী করার যে আগ্রহ এরইমধ্যে ইমরান খান প্রকাশ করেছেন তাকে সাধুবাদ জানিয়ে প্রেসিডেন্ট রুহানি বলেন, অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক সম্পর্কের ক্ষেত্রে অবশ্যই বন্ধুপ্রতীম প্রতিবেশী দু’টি দেশকে অনেক বেশি অগ্রসর হতে হবে। টেলিফোনালাপে আগামী অক্টোবরে তেহরানে অনুষ্ঠেয় এশীয় দেশগুলোর শীর্ষ নেতাদের এক সম্মেলনে অংশগ্রহণের জন্য ইমরান খানকে আমন্ত্রণ জানান।

এ সময় পাকিস্তানের সাবেক ক্রিকেটার ও বিশ্বকাপ জয়ী দলের অধিনায়ক ইমরান খানও ইরানের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক শক্তিশালী করার আগ্রহের কথা জানান।

অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে তার শাসনামলে ইরানের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক শক্তিশালী হবে বলে ইমরান খান প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। ড. রুহানির সঙ্গে টেলিফোনালাপে তিনি অক্টোবরে অনুষ্ঠেয় তেহরান শীর্ষ সম্মেলনে অংশগ্রহণের দৃঢ় ইচ্ছা প্রকাশ করেন।

তেলের খনিতে কপাল খুলছে ইমরান খান

ইরান সীমান্তের কাছে বিশাল তেলের মজুদ আবিষ্কারের খবর দিয়েছেন পাকিস্তানের অন্তর্বর্তী সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল্লাহ হুসেইন হারুন। তিনি দাবি করেছেন, এই একটি খনিতে কুয়েতের মোট মজুদের চেয়েও বেশি তেল রয়েছে।

তিনি গত মঙ্গলবার পাকিস্তানের ফেডারেশন অব চেম্বার্স অব কমার্স ইন্ডাস্ট্রির এক বৈঠকে ঘোষণা করেন, ইরান-পাকিস্তান পানিসীমার কাছে আমেরিকার ‘এক্সন মোবিল’ কোম্পানি বিশাল এক তেলের মজুদ খুঁজে পেয়েছে। উত্তোলন উপযোগী এই তেলের খনি পাকিস্তানকে তেলের মজুদের দিক দিয়ে বিশ্বের ষষ্ঠ দেশে পরিণত করবে।

এই তেল ক্ষেত্র থেকে তেল উত্তোলন শুরু করতে ১,০০০ কোটি ডলার খরচ হবে বলে জানান পাক অস্থায়ী পররাষ্ট্রমন্ত্রী। তিনি জানান, পাকিস্তান সরকারের সাথে স্বারিত চুক্তি অনুযায়ী, এই ত্রে থেকে উত্তোলনকৃত তেলের শতকরা ২৫ ভাগ এক্সন মোবিলকে দিতে হবে। সম্প্রতি এক্সন মোবিল জানিয়েছিল, তারা ইরান-পাকিস্তান সীমান্তে বড় ধরনের তেলের মজুদ পাওয়ার কাছাকাছি অবস্থায় রয়েছে।

পাকিস্তানের তেল ও গ্যাসের মতো খনিজ সম্পদের সন্ধানে এক্সন মোবিল এ পর্যন্ত ৫,০০০ মিটার খননকাজ সম্পন্ন করেছে। আমেরিকার এ কোম্পানিকে গ্যাস অনুসন্ধানেরও দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

 

You Might Also Like