মাদকে মাতাল ডিজিটাল বাংলাদেশ

হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ বলেছেন, ঘরে ঘরে চাকরি দেওয়ার কথা শুনেছিলাম কিন্তু সেটা হয়নি। বরং ঘরে ঘরে এখন চলে গেছে ইয়াবা। এখন মাদকের ছোঁবলে ডিজিটাল বাংলাদেশ টালমাতাল।
মে-দিবস উপলক্ষ্যে মঙ্গলবার বিকালে জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এক শ্রমিক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

এরশাদ বলেন, ‘দেশে সুশাসন নেই। অপরাধীদের বিচার নেই। তাই দেশে ধর্ষণ বেড়ে গেছে। বেড়ে গেছে খুন, গুম, সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি আর দলবাজি। দেশটা অধঃপতনে গেছে। খবরের কাগজ খুললেই শুধু হত্যা আর মৃত্যুর সংবাদ চোখে পড়ে। আমরা বাঁচতে চাই; দেশ ও মানুষকে বাঁচাতে চাই। তাই পরিবর্তন প্রয়োজন। আর জাতীয় পার্টি ছাড়া এই পরিবর্তন সম্ভব নয়।’

তিনি আরো বলেন, ‘আমাদের হাতে আজ কিছু নেই। হাসি নেই, আনন্দ নেই, শান্তি নেই, বাক স্বাধীনতা নেই, গণতন্ত্র নেই, নিরাপত্তা নেই, নাগরিক অধিকার নেই, শ্রমিকের কাজ নেই, কৃষকের খাওয়া নেই, বেকারের বাঁচার পথ নেই, বিচার নেই, আইনের শাসন নেই, শুধু নেই আর নেই। আছে শুধু হাত বাঁধা শৃংখল। এই শৃংখল আজ আমাদের ভাঙতে হবে। এই হোক মহান মে দিবসের অঙ্গীকার।’

শ্রমিকদের খবর কেউ রাখে না মন্তব্য করে প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘বেঁচে থাকার তাগিদে শ্রমিকরা ১২ ঘণ্টা কাজ করে কিন্তু কেউ তাদের খবর রাখে না। কাজ শেষে শ্রমিকরা কোথায় থাকে, কীভাবে থাকে কেউ কি খোঁজ রাখে?’

তিনি বলেন, ‘জাতীয় পার্টিই শ্রমিকবান্ধব। আমরা ক্ষমতায় এলে শ্রমিকদের জীবন মান উন্নয়নে সবকিছুই করবো।’

জাতীয় শ্রমিক পার্টির সভাপতি একেএম আসরাফুজ্জামান খানের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ, কো-চেয়ারম্যান জি এম কাদের, মহাসচিব এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি, কাজী ফিরোজ রশীদ এমপি, জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু এমপি, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, এস এম ফয়সল চিশতী।

You Might Also Like