শাকিলের স্ত্রী তার প্রেমিককে নিয়ে হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করে

যাত্রাবাড়ীতে মির্জা শাকিল হত্যাকাণ্ডের রহস্যের জট খুলেছে। পরকীয়ার জন্য শাকিলের স্ত্রী তার প্রেমিককে নিয়ে হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করে। ঘটনার আড়াই বছর পর দুই জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।
২৭ জানুয়ারি শাকিলকে হত্যা করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ফেলে রেখে যায় গ্রেপ্তারকৃতরা। সোমবার পিবিআইয়ের এক বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ২৮ এপ্রিল ঢাকা জেলার দোহার থানার জয়পাড়া এলাকা থেকে শাকিলের স্ত্রী আলো আক্তার ওরফে আলেয়া ও ২৯ এপ্রিল রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার ধোলাইপার এলাকা মো. ইব্রাহীমকে গ্রেপ্তার করা হয়। ইব্রাহীম এ হত্যাকাণ্ডের প্রধান পরিকল্পনাকারী।

পিবিআই জানায়, ২০১৬ সালের ২৭ জানুয়ারি মির্জা শাকিলকে অতিরিক্ত মদপান করায় ইব্রাহীম ও তার সহযোগিরা। আর আলেয়া শাকিলের স্ত্রী। তারা দুইজন যাত্রাবাড়ী এলাকায় একটি ফ্ল্যাট বাসা ভাড়া করে থাকত। ইব্রাহীম ছিল শাকিলের বন্ধু। ইব্রাহিমও শাকিলের ওই ফ্ল্যাটে তাদের সঙ্গে থাকত। এক সময় আলেয়ার সঙ্গে পরকীয়ায় লিপ্ত হয় ইব্রাহিম। এ কারণে শাকিলের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হয় ইব্রাহিম ও আলেয়ার। এক পর্যায়ে শাকিলকে মেরে ফেলার পরিকল্পনা করে তারা। পরিকল্পনা ২৫ জানুয়ারি শাকিলকে সঙ্গে নিয়ে আলেয়া ও ইব্রাহিম মদ পান করে। অতিরিক্ত মদ পান করায় শাকিল একাধিকবার বমি করে। সারাদিন তার মুখ দিয়ে লালা বের হলে চিকিৎসার নাম করে ফার্মেসি থেকে সিরাপ জাতীয় ওষুধ খাওয়ায় ইব্রাহীম। অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে ঢামেকে নেওয়া হলে চিকিৎসক শাকিলকে মৃত ঘোষণা করেন। ইব্রাহিম ও আলেয়া কৌশলে লাশ ঢামেকে রেখে পালিয়ে যায়।

সোমবার বিকেলে যাত্রাবাড়ী থানার তৎকালীন অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আনিসুর রহমান বলেন, ‘আমরাও তখন পরকীয়ার বিষয়টি সন্দেহ করি। কিন্তু আসামিরা পলাতক থাকায় তদন্তে আর বেশিদূর এগোতে পারেনি।’

You Might Also Like