রমজানকে সামনে রেখে ছোলার দাম না বেড়ে বরং কমছে!

ইফতারির অত্যাবশ্যকীয় খাবার ছোলা। রমজানে ছোলার ব্যাপক চাহিদাকে ঘিরে ব্যবসায়ীরাও সুযোগ নিয়ে থাকেন। নানা কৌশলে দাম বাড়ানো হয় ভোগ্যপণ্যটির। কিন্তু এবার ঠিক ঘটতে যাচ্ছে উল্টোটা।
রমজান শুরু হতে আর মাত্র ১৫ দিন বাকি। কিন্তু ছোলার মূল্য ঊর্ধ্বগতির পরিবর্তে নিম্মগতিতে রয়েছে। দেশের সবচেয়ে বড় ভোগ্যপণ্যের পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে ছোলার মূল্য প্রতিদিন কমতির দিকে। রমজান আসতে আসতে ছোলার দাম কেজিপ্রতি ২৫ টাকা পর্যন্ত কমে যেতে পারে বলে ব্যবসায়ীরা ধারণা করছেন।

গত বছরের মজুদ শেষ না হওয়া, চলতি মৌসুমে আগাম ব্যাপক আমদানি এবং আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্য স্থীতিশীল থাকায় দাম কমে যাওয়ার কথা জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা।
চট্টগ্রামের ভোগ্যপণ্য ব্যবসায়ী ও আমদানিকারকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত বছরের আমদানিকৃত ছোলার ব্যাপক মজুদ রয়েছে খাতুনগঞ্জের বিভিন্ন গুদামে। যা এই বছরে রমজানের চাহিদায় বাজারে ছাড়া হবে। এ ছাড়া নতুন করে আগামী রমজান মাসকে সামনে রেখে বিপুল পরিমাণ ছোলা আমদানি হচ্ছে চট্টগ্রাম বন্দর ও টেকনাফের স্থল বন্দর দিয়ে।

চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউস থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, গত ২০১৬-১৭ অর্থবছরে ছোলা আমদানি হয় ১ লাখ ৬৯ হাজার টন। এবার ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত আমদানি হয়েছে ১ লাখ ২২ হাজার টন। আমদানির পথে রয়েছে আরও ৭০ হাজার টনেরও বেশি। আগামী মে মাস পর্যন্ত ছোলার আমদানি ২ লাখ টন ছাড়িয়ে যেতে পারে। এর ফলে বাজারে চাহিদার তুলনায় সরবরাহের ঘাটতি থাকবে না। চলতি বছরের আমদানির সঙ্গে গতবছরের মজুদ যোগ হয়ে বাজারে রীতিমত ছোলায় সয়লাব হবে বলেই ব্যবসায়ীরা মত প্রকাশ করেছেন।

চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জের ভোগ্যপণ্যের ব্যবসায়ী ও ছোলা আমদানিকারক আশুতোষ মহাজন রাইজিংবিডিকে জানান, বাজারে ছোলার ব্যাপক সরবরাহের ফলে এই বছর মূল্য ব্যাপক ধস নামার আশঙ্কা রয়েছে। রমজানের পূর্ব-মুহূর্তে মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ার কথা থাকলেও পাইকারি বাজারে এখন দাম শুধুই কমছে।

তিনি বলেন, গতমাসেও পাইকারি বাজারে ছোলার মণ ২৫০০ টাকা থেকে ২৩০০ টাকায় বিক্রি হলেও এপ্রিলের শেষের দিকে মূল্য নেমে এসেছে মণ প্রতি ১৮০০ টাকা থেকে ১৮৫০ টাকায়। পাইকারি বাজারে গতমাসে প্রতিকেজি ছোলা বিক্রি হয়েছে ৬১ টাকা থেকে ৬২ টাকায়। এখন সেই ছোলা বিক্রি হচ্ছে কেজি ৪৫ টাকা থেকে ৪৬ টাকায়। ইতিমধ্যে কেজিপ্রতি ছোলার দাম পাইকারি বাজারে ১৫ থেকে ১৬ টাকা কমে গেছে। রমজান আসতে আসতে ২৫ টাকা পর্যন্ত কমে যেতে পারে।

খুচরা বাজারে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত মাসে খুচরা বাজারে ছোলা বিক্রি হয়েছে গড়ে ৭০ টাকা কেজি দরে। এখন মূল্য ৫৫ থেকে ৬০ টাকা। দাম কমতির দিকে হওয়ায় খুচরা ব্যবসায়ীরা ছোলা মজুদ করছেন না। এর ফলে রমজানে খুচরা বাজারে মূল্য অনেক কমে যাবে বলে খুচরা ব্যবসায়ীরা অভিমত প্রকাশ করেছেন।

সরকারি ট্যারিফ কমিশনের তথ্য অনুযায়ী, দেশে প্রতিবছর ছোলার চাহিদা (রমজান মাসসহ) ১ লাখ ৭০ হাজার টন। কিন্তু গত অর্থ বছরে চাহিদা কিছুটা কম ছিল। ১ লাখ ৬৯ হাজার টন আমদানির বিপরীতে চাহিদা ছিল ১ লাখ ৫০ হাজার টনের কম। চলতি বছর ১ লাখ ৭০ হাজার টন চাহিদার বিপরীতে প্রায় ২ লাখ টন ছোলা আমদানির সম্ভাবনা রয়েছে। এতে ছোলার দাম নিশ্চিত কমে যাবে।

ট্যারিফ কমিশন সূত্রে আরও জানা যায়, রমজান মাসে ছোলার চাহিদা থাকে ৫০ হাজার টন। এই চাহিদার বিপরীতে গত জানুয়ারি মাসে ছোলা আমদানি হয়েছে ১ লাখ ৬ হাজার টন। এর আগের বছর একই সময়ে আমদানির পরিমাণ ছিল মাত্র ৫৬ হাজার টন। এর ফলে এই বছর চাহিদার তুলনায় সরবরাহ ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পাবে।

You Might Also Like