ঘরবাড়ি ছেড়ে পালাচ্ছে মিয়ানমারের বাসিন্দারা

কাচিন প্রদেশে সেনাবাহিনী ও বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সংঘর্ষের কারণে হাজার হাজার বাসিন্দা ঘরবাড়ি ছেড়ে পালিয়ে গেছে।

জাতিসংঘের হিসেব অনুযায়ী , এপ্রিলের প্রথমদিক থেকে এ পর্যন্ত প্রায় চার হাজার লোক তাদের ঘরবাড়ি ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছে।
কাচিনের অধিকাংশ বাসিন্দাই খ্রিষ্টান। স্বায়ত্ত্বশাসনের দাবিতে ১৯৬১ সাল থেকে তারা মিয়ানমার সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে। এ লড়াইয়ের কারনে কাচিন ও উত্তর শান রাজ্য থেকে ১ লাখ ২০ হাজার লোক বাস্তুচ্যুত হয়েছে। গত কয়েক বছরে মিয়ানমার সরকার বেশ কয়েকটি সংখ্যালঘু বিদ্রোহী গোষ্ঠীর সঙ্গে শান্তিচুক্তি করেছে। তবে কাচিন ইন্ডিপেনডেন্স অর্গানাইজেশন (কেআইও) এর সঙ্গে কোনো চুক্তিতে পৌঁছেতে পারেনি। এখনো এটি মিয়ানমারের সবচেয়ে শক্তিশালী বিদ্রোহী গোষ্ঠী।

মানবাধিকার সংগঠনগুলো জানিয়েছে, গত বছরের আগস্টে রাখাইন রাজ্য থেকে রোহিঙ্গাদের বিতাড়ন শুরু করে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের চোখ যখন রোহিঙ্গাদের দিকে ঠিক তখনই কাচিনে বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে সেনাবাহিনী।

জাতিসংঘের ত্রাণ বিষয়ক সমন্বয়ক মার্ক কাটস বলেন, ‘আমাদের সবচেয়ে বড় উদ্বেগ হচ্ছে, গর্ভবর্তী নারী, বৃদ্ধ ও শারীরিক প্রতিবন্ধী লোকজন। আমাদের এসব লোক সুরক্ষা নিশ্চিত করতে হবে।’

You Might Also Like