তারেক রহমানকে দেশে ফেরাতে সরকারের প্রাণপণ চেষ্টা!

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমানকে দেশে ফেরত পাঠাতে যুক্তরাজ্য সরকার আগ্রহ দেখানোর কারণেই বাংলাদেশ আলোচনা চালিয়েছে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, এ আলোচনা অনেকদূর এগিয়ে গেছে, তবে খালেদা জিয়ার ছেলেকে দেশে ফেরানোর পর আলোচনাকে সফল বলা যাবে।
আজ রোববার রাজধানীতে একটি অনুষ্ঠান শেষে গণমাধ্যমকর্মীদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন আইনমন্ত্রী। বিচার প্রশাসন প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে সিনিয়র সহকারী জজ এবং সমপর্যায়ের বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের ১৪১তম প্রশিক্ষণ কোর্সের উদ্বোধন উপলক্ষে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
প্রধানমন্ত্রী ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে যে আলোচনার কথা বলেছেন, সেটা কোন পর্যায়ে—জানতে চাইলে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘একজন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকে ফিরিয়ে আনার জন্য যে আলোচনা, যাদের সঙ্গে আলোচনার প্রয়োজন সেই আলোচনা চলছে। আলোচনায় পজিটিভ দিক দেখছি বলেই চালিয়ে যাচ্ছি।’
মন্ত্রী বলেন, ‘তবে ফিরিয়ে না আনা পর্যন্ত এটা ফলপ্রসূ হচ্ছে কি না, সেটা কিন্তু আমি বলব না।’ যুক্তরাজ্য সরকারের সঙ্গে বন্দিবিনিময় চুক্তি না থাকার পরেও তারেক রহমানকে দেশে ফেরানো সমস্যা নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
অন্য একটি আইন অনুযায়ী যুক্তরাজ্য সরকারের সঙ্গে আলোচনা এগিয়েছে উল্লেখ করে আনিসুল হক বলেন, ‘বন্দি বিনিময় চুক্তি না থাকলেও সেটি করতে তো বাধা নেই। আরেকটি আইন আছে, সেটা হলো মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাক্ট । এ আইনে কিছু অপরাধীর বন্দিবিনিময় চুক্তি না থাকা সত্ত্বেও আমরা কিন্তু ফিরিয়ে আনতে পারি। সেই মিউচুয়াল লিগ্যাল অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাক্ট আমাদের এই দুই দেশের মধ্যেই (বাংলাদেশ ও যুক্তরাজ্য) আছে।’

You Might Also Like