কান্না করলেন ইনিয়েস্তা তবুও থাকবেন না বার্সায়

ক্যামেরাগুলো খুঁজে বেরাচ্ছিল আন্দ্রেস ইনিয়েস্তাকে। কোপা দেল রের ফাইনালে সেভিয়ার জালে ততক্ষণে পাঁচ গোল বার্সেলোনার।

ইনিয়েস্তা ২০১১ সালের পর প্রথমবারের মতো বার্সেলোনার জার্সিতে কোনো ফাইনালে করলেন গোল। মাঠ থেকে সতীর্থদের সঙ্গে বেরিয়ে গেলেন ডাগআউটে। সেখান বসে কাঁদলেন কিছুক্ষণ। এরপর উঠে গিয়ে তুলে নিলেন টানা চতুর্থ এবং কোপা দেল রের ৩০তম শিরোপা। বার্সেলোনার জার্সিতে এর আগেও বহুবার এ ট্রফি জিতেছেন ইনিয়েস্তা।

কিন্তু এবারের মতো উল্লাস এর আগে একবারও করেননি। মাঠে হইহুল্লোড় করেছেন, সবাইকে নিয়ে করেছেন ফটোসেশন। চোখে মুখে তৃপ্তি আর বহু অর্জনের আনন্দ। এরপর মাঠ থেকে বেরিয়ে আবার গিয়ে বসেন ডাগআউটে। কাঁদলেন আবারও। একান্তে সময় কাটালেন কিছুক্ষণ।

এরপর উঠে চলে গেলেন ড্রেসিং রুমে। সেখান থেকে সংবাদ সম্মেলন কক্ষে। ধারণা করা হচ্ছিল রোববার রাতেই হয়তো বার্সেলোনা ছাড়ার ঘোষণা দেবেন ইনিয়েস্তা। কিন্তু সেসব কিছু হলো না। সংবাদ সম্মেলনে জানালেন, মৌসুম শেষে কি করতে যাচ্ছেন সেই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত। কিন্তু আজ কোনো ঘোষণা দেবেন না।
তার ভাষ্য,‘আমি চলতি সপ্তাহেই আমার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করব। আমার সিদ্ধান্তও চূড়ান্ত। আজকের ফলে আমরা সবাই খুশি। আমি নিজ থেকে ভালো খেলতে চেয়েছি এবং প্রথম মিনিট থেকেই তা পেরেছি।’

‘ব্যক্তিগতভাবে এবং দলগতভাবে পুরো দলই পারফরম্যান্সে খুশি। এই শিরোপাটা আমরা জিততে চাচ্ছিলাম এবং আশা করছি লিগ শিরোপাও জিততে পারব।’

‘দল আজ দশে দশ পাওয়ার যোগ্য। আজকের জয়ে অনেক আবেগ এবং অনুভূতি জড়িত আছে। আজকের পারফরম্যান্সে আমি খুশি এবং যেকোনো শিরোপার থেকে এ শিরোপা আমাকে বেশি আনন্দিত করেছে। সবাই রোমার বিপক্ষে ম্যাচ নিয়ে ভাবছে কিন্তু আমি মনে করি আমরা এটার যোগ্য।’- যোগ করেন ইনিয়েস্তা।

বলার অপেক্ষা রাখে না ইনিয়েস্তা বার্সেলোনা ছাড়ার সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করেছেন! এজন্যই কাতালানদের জার্সিতে নিজের শেষ ফাইনাল শেষে কেঁদেছেন ৩৩ বছর বয়সি এ মিড ফিল্ডার। তার নতুন ঠিকানা হতে পারে তিয়ানজিন কোয়ানজিয়ান ক্লাব। খেলবেন চাইনিজ সুপার লিগ।

You Might Also Like