অনুমতি পেলেন সালমান খান

কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয় অভিনেতা সালমান খানকে। এরপর যোধপুর কেন্দ্রীয় কারাগারে দুইদিন কারাভোগের পর গত ৭ এপ্রিল জামিনে মুক্তি পান তিনি।

তখন বাদি পক্ষের আইনজীবী মহিপাল বিষ্ণোই ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে বলেছিলেন, ‘জামিনের জন্য এ অভিনেতাকে ২৫ হাজার রুপি করে দুটি বন্ড কিনতে হয়েছে। আর আদালতের অনুমতি ছাড়া তিনি দেশ ত্যাগ করতে পারবেন না। আগামী ৭ মে স্বশরীরের তাকে আবারো আদালতে হাজির হতে হবে।’

ভারতের বাইরে ভ্রমণের বিষয়ে আদালত নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিলেন। এবার সালমানের ওপর আরোপিত এ নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়ে দেশের বাইরে ভ্রমণের অনুমতি দিয়েছেন ভারতের যোধপুর জেলা ও দায়রা জজ। জামিনের দিনই দেশের বাইরে ভ্রমণের জন্য অনুমতি চেয়ে আবেদন করেছিলেন সালমান খান। তারপরই বিজ্ঞ আদালত অনুমতি দিয়েছেন বলে ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যম খবর প্রকাশ করেছে।

আগামী ২৫ মে থেকে ১০ জুলাই পর্যন্ত কানাডা, নেপাল ও যুক্তরাষ্ট্রে সালমান খান সিনেমার শুটিং করবেন বলেও প্রকাশিত প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

গত ৫ এপ্রিল যোধপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দেব সিং খাতরি বহুল আলোচিত কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় সালমানকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেন। পাশাপাশি ১০ হাজার রুপি জরিমানা করা হয় এ অভিনেতাকে। অভিযুক্ত অন্যরা এ মামলা থেকে অব্যাহতি পান।

১৯৯৮ সালে হিন্দি সিনেমা ‘হাম সাথ সাথ হ্যায়’-এর শুটিং চলাকালীন যোধপুরের কাছে কঙ্কনী গ্রামে বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ শিকারের অভিযোগ ওঠে সালমানের বিরুদ্ধে। পরবর্তী সময়ে এ বিষয়ে মামলাও দায়ের হয়। সিনেমাটিতে সালমান খানের সহশিল্পী সাইফ আলী খান, সোনালী বেন্দ্রে, টাবু ও নীলমকেও এ মামলায় অভিযুক্ত করা হয়।

প্রায় দুই দশক ধরে চলে আসছিল এ মামলা। ভারতের বন্যপ্রাণী আইন অনুযায়ী বিরল প্রজাতির কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা দণ্ডনীয় অপরাধ। বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের মানুষ এই হরিণকে ভক্তি করেন এবং এটি রক্ষায় কাজ করে থাকেন।

You Might Also Like