রংপুরে বাবু সোনা হত্যা : পুলিশের ২ এসআই ক্লোজ

২৯ মার্চ রাতে বাবু সোনাকে হত্যা করে নগরীর তাজহাট মোল্লাপাড়ায় নির্মাণাধীন বাড়ির ঘরে পুঁতে রাখা হয়। এই ঘটনায় নিহতের ছোট ভাই সুশান্ত ভৌমিক বাদী হয়ে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন। এই মামলায় পুলিশ বাবু সোনার স্ত্রী স্নিগ্ধা ভৌমিক দিপা, স্কুল শিক্ষক কামরুল ইসলামসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে। এই মামলায় কোতোয়ালি থানার এসআই তরিকুল ইসলাম তারেক ও ধাপ পুলিশ ফাঁড়ির এসআই দিবাকর দায়িত্ব পালনে অবহেলা করেন বলে অভিযোগ উঠে। তাই তাদের ক্লোজ করা হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুর রহমান জানিয়েছেন, তাদের ক্লোজ করা হলেও তিনি এখনো অফিশিয়াল কাগজপত্র পাননি। কাগজ পেলে বিস্তারিত বলতে পারবেন।
বৃহস্পতিবার রাতে আদালতে বাবু সোনাকে হত্যার দায় স্বীকার করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন দিপা। দিপা বলেছেন, দাম্পত্য জীবনে পারস্পরিক অবিশ্বাস, অশান্তি, অবজ্ঞাসহ নানা কারণে স্বামী রথীশ চন্দ্র ভৌমিক বাবু সোনাকে হত্যা করেছেন।

বাবু সোনাকে হত্যার ঘটনায় এ পর্যন্ত পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা হলেন- বাবু সোনার স্ত্রী দিপা ভৌমিক, তার প্রেমিক ও সহকর্মী কামরুল ইসলাম, আইনজীবী সহকারী মিলন মোহন্ত, সবুজ ইসলাম ও রোকনুজ্জামান। এদের মধ্যে চারজন স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। কামরুলকে পুলিশ ১০ দিনের রিমান্ডে নিয়েছে।

You Might Also Like