অজয়ের জন্য নায়িকার আত্মহত্যার চেষ্টা!

আজ সোমবার ৪৯ বছরে পা রেখেছেন বলিউড তারকা অজয় দেবগন। ২৬ বছর ধরে বলিউডে একইভাবে কাজ করছেন তিনি। একাধিকবার প্রথম আলোর মুখোমুখি হয়েছেন। সম্প্রতি ‘রেইড’ ছবির মুক্তির আগে উঠে আসে অজয়ের জন্মদিনের কথা। কীভাবে জন্মদিন উদ্‌যাপন করবেন? অজয় হেসে বলেন, ‘জন্মদিন আমার কাছে একটা সাধারণ দিন। কখনোই ঘটা করে জন্মদিন উদ্‌যাপন করি না। পরিবারের সঙ্গে সময় কাটাব।’ এ রকমই সাদামাটা বহু হিট ছবির এই নায়ক। কাজ শেষ হলেই সোজা ফিরে যান পরিবারের কাছে। পার্টি, হইহুল্লোড় একদমই পছন্দ করেন না।

অজয় ও কাজলের বিয়ের বয়স ১৯ বছর। বলিউডের সবচেয়ে সুখী দম্পতিদের মধ্যে অন্যতম। কিন্তু অজয়ের জীবনে কাজল আসার আগে একাধিক নায়িকার নাম জড়িয়ে ছিল। এ ক্ষেত্রে প্রথমেই উঠে আসে রাভিনা ট্যান্ডনের কথা। শোনা গেছে, ‘দিলওয়ালে’ ছবির শুটিংয়ে অজয়-রাভিনার মধ্যে সম্পর্ক তৈরি হয়। এই বলিউড অভিনেত্রী অজয়ের প্রেমে নাকি পাগল ছিলেন। তখন বিভিন্ন পত্রিকায় তাঁদের ভালোবাসার কথা প্রকাশিত হয়।

এরই মাঝে অজয়ের জীবনে আরেক বলিউড সুন্দরীর আবির্ভাব হয়। তিনি কারিশমা কাপুর। ‘জিগর’ সিনেমার শুটিংয়ের সময় অজয় আর কারিশমার মধ্যে সম্পর্ক তৈরি হয়। রাভিনা এ খবর সহ্য করতে পারেননি। শোনা যায়, তাঁদের সম্পর্কের কথা শুনে রাভিনা নাকি আত্মহত্যা করতে গিয়েছিলেন। এ প্রসঙ্গে অজয় এক ম্যাগাজিনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ‘রাভিনার মনোচিকিৎসক দেখানো উচিত। আর রাভিনা শুধু নিজের প্রচারের জন্য আমার সঙ্গে ওর নাম জুড়িয়েছে।’ তবে রাভিনাও চুপ থাকেননি। তিনি এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘অজয় ও কারিশমার শিশু জেব্রার মতো হবে।’ তা শুনে অজয় খুব বিরক্ত হয়েছিলেন।
এ সময় অজয়ের জীবনে আসেন কাজল। একই সেটে তাঁদের সঙ্গে দেখা হয়। অজয় তাঁর এবং কাজলের রোমান্সের প্রসঙ্গে বলেছিলেন, ‘আমি নিজেও জানি না, আমাদের সম্পর্ক কবে শুরু হয়। আমি কখনো কাজলকে প্রেম নিবেদন করিনি। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক এগোতে থাকে।’ তবে শোনা গিয়েছিল, কাজলকে অজয়ের চোখ বেশি আকর্ষণ করেছে। এই বলিউড সুন্দরী অজয়ের চোখের প্রেমে পাগল ছিলেন। মেয়ে নিয়াসা আর ছেলে যুগকে নিয়ে তাঁরা এখন সুখে আছেন।

অজয় মিতভাষী। সাংবাদিকদের দীর্ঘক্ষণ সাক্ষাৎকার দিতে অপছন্দ করেন। দেখতে খুবই সাধারণ, তাই ক্যারিয়ারের শুরুতে নানা কথা শুনতে হয়েছে। তবে এসব কথায় কান দেননি। অমিতাভ বচ্চন নাকি অজয়কে ‘কালো ঘোড়া’ নাম দিয়েছিলেন। অভিনয়ের দাপটে তিন দশক ধরে বলিউডের অন্যতম সুপারস্টার তিনি।

অজয় কখনোই নায়ক হতে চাননি। তাঁর মা বীণা দুটি ছবি পরিচালনা করেন। মায়ের মতো তিনি চেয়েছিলেন পরিচালনায় আসতে। তাই শেখর কাপুরের সঙ্গে সহপরিচালক হিসেবে কাজ করেন। তবে বলিউডে পা রেখেছেন কৈশোরে। ‘প্যায়ারি বহেনা’ ছবিতে মিঠুন চক্রবর্তীর ছোটবেলার চরিত্রে অভিনয় করেন। অজয়ের আসল নাম বিশাল বীরু দেবগন। মায়ের কথায় তিনি বিশাল থেকে হয়ে ওঠেন অজয়। সত্যি অজয় আজ অজেয়। কাছের লোকজন তাঁকে রাজু বলে ডাকেন।

‘ফুল ঔর কাঁটে’, ‘ওমকারা’, ‘দ্য লিজেন্ড অব ভগত সিং’, ‘গঙ্গাজল’, ‘জখম’, ‘সিংঘম’, ‘গোলমাল’সহ একাধিক হিট ছবির এই নায়ক আরও হিট ছবির নায়ক হতে পারতেন। ‘করন অর্জুন’ ছবিতে করনের চরিত্রের জন্য পরিচালক রাকেশ রোশনের প্রথম পছন্দ ছিল অজয়। আর ‘অর্জুন’-এর চরিত্রের জন্য পরিচালক চেয়েছিলেন সানি দেওলকে। কিন্তু অজয় ও সানি কাজটি করতে পারেননি। তখন করনের চরিত্রের জন্য অজয়ের পরিবর্তে সালমান খানের কথা ভাবেন রাকেশ, আর অর্জুনের চরিত্রের জন্য শাহরুখ খানকে। পরে সালমান ও শাহরুখ এই ছবিতে কাজ করেন। এমনকি ‘ডর’ ছবির জন্য আমির এবং শাহরুখের আগে যশ চোপড়ার প্রথম পছন্দ ছিল অজয়। অজয়কে না পেয়ে শাহরুখকে নির্বাচন করেন পরিচালক। সম্প্রতি মুক্তি পাওয়া ‘পদ্মাবত’ ছবিতে আলাউদ্দিন খলজির চরিত্রে রণবীর সিং ধামাকা ফেলে দেন। কিন্তু এই চরিত্রের জন্য পরিচালক সঞ্জয় লীলা বানসালি প্রথম প্রস্তাব দেন অজয়কে। কিন্তু ডেটের সমস্যার কারণে অজয় ছবিটি করতে পারেননি।
‘জখম’ ও ‘দ্য লিজেন্ড অব ভগত সিং’ ছবি দুটির জন্য অজয় দুবার জাতীয় পুরস্কার পান। ২০১৬ সালে অজয়কে ‘পদ্মশ্রী’ সম্মানে ভূষিত করা হয়। সাধারণ জীবনযাপনে বিশ্বাসী এই বলিউড তারকা কাজের সুবিধার্থে ব্যক্তিগত উড়োজাহাজ কেনেন। শুটিং আর ব্যক্তিগত কাজে অজয় ছয় সিটারের এই উড়োজাহাজ ব্যবহার করেন।

অজয় এখন ব্যস্ত ‘তানাজি-অনসঙ্গ যোদ্ধা’ ছবির প্রস্তুতি নিয়ে। ছবিতে তাঁকে ছত্রপতি শিবাজির সেনাপতি ‘সুবেদার তানাজি মালুসরে’র চরিত্রে দেখা যাবে। এ ছাড়া একাধিক ছবি আছে তাঁর হাতে।

You Might Also Like