রাশিয়া-ইউক্রেনের আকাশসীমা ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা বাংলাদেশের

সম্ভাব্য ক্ষেপণাস্ত্র হামলায় মালয়েশিয়া এয়ারলাইনসের বিমান ভূপাতিত হওয়ার পর ইউক্রেনের আকাশসীমা এড়িয়ে বিকল্প পথে ইউরোপের ফ্লাইট পরিচালনা করছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস।

বিমানের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) এ এম মোসাদ্দিক আহমেদ বলেন, ইউক্রেন-রাশিয়া সীমান্তের আকাশপথে বাংলাদেশ বিমান সপ্তাহে পাঁচটি ফ্লাইট পরিচালানা করত। এর মধ্যে সপ্তাহে তিনটি ঢাকা-লন্ডন ও দুটি ঢাকা-রোম-ফ্রাঙ্কফুর্ট গন্তব্যে চলাচল করত। মালয়েশিয়া এয়ারলাইনসের উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হওয়ার পর থেকে ওই আকাশপথে বাংলাদেশ বিমানের কোনো উড়োজাহাজ যাচ্ছে না।

বিমান সূত্রে জানা গেছে, ইউরোপের এই তিনটি বিমানের ফ্লাইটগুলো এত দিন কাজাখস্তান, রাশিয়া, ইউক্রেন ও জার্মানি হয়ে ইউরোপের দেশগুলোয় যাতায়াত করত। ইউক্রেন ও রাশিয়ার সীমান্তবর্তী এলাকায় গত বৃহস্পতিবার মালয়েশিয়া এয়ারলাইনসের উড়োজাহাজটি বিধ্বস্ত হওয়ার পর বাংলাদেশের বেসামরিক বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষ এই পথ এড়িয়ে চলার নির্দেশনা দেয়। পরদিন শুক্রবার থেকে বিকল্প আকাশপথে (কাজাখস্তান-আঙ্কারা-ইস্তাম্বুল-বুলগেরিয়া-হাঙ্গেরি) ইউরোপে যাচ্ছে বিমানের ফ্লাইট।

তবে সংশ্লিষ্ট একটি সূত্র জানায়, ক্রিমিয়া অঞ্চলের কর্তৃত্ব নিয়ে রাশিয়া ও ইউক্রেনের মধ্যে যুদ্ধাবস্থা সৃষ্টির পর ইউক্রেন-রাশিয়া সীমান্তের আকাশসীমা ব্যবহারের ঝুঁকি সম্পর্কে গত ২৫ এপ্রিল সতর্ক করেছিল যুক্তরাষ্ট্রের ফেডারেল এভিয়েশন অথরিটি (এফএএ)।

একইভাবে সতর্কতা জারি করেছিল আন্তর্জাতিক বেসামরিক বিমান পরিবহন সংস্থাও (আইকাও)। কিন্তু গত বৃহস্পতিবার পর্যন্ত এ পথেই ইউরোপের ফ্লাইট পরিচালনা করে আসছিল বাংলাদেশ বিমান, মালয়েশিয়া এয়ারলাইনস, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস, এয়ার ইন্ডিয়া, থাই এয়ারওয়েজ, এয়ার চায়না, চায়না ইস্টার্ন এয়ারওয়েজ, ভিয়েতনাম এয়ারলাইনসহ বেশ কয়েকটি বিমান সংস্থা। কারণ এতে জ্বালানি খরচ ও ওভারফ্লাইং চার্জ অনেক বেশি পড়ে।

তবে বৃহস্পতিবার রাতেই বাংলাদেশের সিভিল এভিয়েশন রাশিয়া-ইউক্রেনের আকাশসীমা ব্যবহারের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। সূত্র: প্রথম আলো

You Might Also Like