আবারো ফাঁকা মাঠে গোল দিতে চায় আওয়ামী লীগ: রিজভী

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে এ সপ্তাহের জন্য দুই দিনের নতুন কর্মসূচি দিয়েছে বিএনপি। কর্মসূচি অনুযায়ী মঙ্গলবার ঢাকাসহ সারা দেশে এক ঘণ্টা মানববন্ধন এবং বৃহস্পতিবার ঢাকাসহ সারাদেশে এক ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে বিএনপি। উভয় দিনের কর্মসূচি সকাল ১১টা থেকে দুপুর ১২ টা পর্যন্ত চলবে।

আজ (রোববার) সকালে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম রুহুল কবির রিজভী এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন। এসময় সরকারের সমালোচনা করে রিজভী বলেন, আওয়ামী লীগ কোমর বেঁধে নির্বাচনী প্রচারে নেমেছে। গতকাল প্রধানমন্ত্রী খুলনায় নৌকা মার্কার ভোট চেয়েছেন। একতরফাভাবে প্রচারণা চালাচ্ছেন তারা। বিএনপি নির্বাচন কমিশনকে অভিযোগ করলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

রিজভী আরো বলেন, আওয়ামী লীগ গণতন্ত্র ও আইনের শাসনের শত্রু। তারা একতরফা নির্বাচন করার জন্যই খালেদা জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দিয়ে কারাগারে রেখেছে। আবারো ফাঁকা মাঠে গোল দিতে চায়। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া ছাড়া দেশে কোনো নির্বাচন হবে না, হতে দেয়া হবে না।
জুন পর্যন্ত অহিংস আন্দোলন: বুলু

আন্দোলন প্রসঙ্গে বিএনপি নেতা বরকতুল্লাহ বুলু বলেন, আগামি জুন মাস পর্যন্ত তারা এভাবে অহিংস আন্দোলন চালিয়ে যাবে। এরপর নির্বাচন ঘোষনা হলে, বেগম জিয়া মুক্তি পেলে অথবা নতুন পরিস্থিতি সৃষ্টি হলে আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি পরিকল্পনা করা হবে।

খালেদার সঙ্গে দেখা করতে পারলেন না ২৫ নারী অধ্যাপক

ওদিকে, আজ কারাবন্দী বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে দেখা করতে না পেরে ফিরে গেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫ জন নারী অধ্যাপকের একটি প্রতিনিধিদল।

আজ দুপুর বারোটার দিকে তারা কিছু ফলমূল ও শুকনা খাবার সাথে নিয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে সাক্ষাতের জন্য কারাফটকের সামনে অবস্থান নেন। পরে তাদের মধ্যে দুইজন অধ্যাপক আইজি প্রিজনের অফিসে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করে একটি দরখাস্ত দেন। কিন্তু তাদেরকে দেখা করার অনুমতি দেয়া হয়নি। ফলে তারা ফিরে যান।
ফ্যাসিবাদী পথ থেকে গণতন্ত্রের পথে আসুন: খসরু

এদিকে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী সরকারকে ‘ফ্যাসিবাদী পথ থেকে সরে গণতন্ত্রের সঠিক পথে’ আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

আজ (রোববার) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক প্রতিবাদ সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদুসহ দলটির নেতাকর্মীদের মুক্তি দাবিতে এই সভার আয়োজন করে ‘নাগরিক অধিকার আন্দোলন ফোরাম’ নামের একটি সংগঠন।

খালেদা জিয়াকে কারান্তরীণ করার বিষয়টি কোনো বিচারিক কার্যক্রম নয়- এমনটি দাবি করে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, পুরো মামলাটিই একটি রাজনৈতিক বিষয়। তাকে কারাগারে নেয়াও হয়েছে রাজনৈতিক বিবেচনায়। সরকার জনগণ থেকে এতোটা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে যে, তারা বুঝতে পারছে না যে, মানুষ তাদের কথা বিশ্বাস করছে না।

তিনি বলেন, সরকার যতই বলুক এটা আদালতের বিষয়, কিন্তু খালেদা জিয়ার কারাগারে যাওয়ার সঙ্গে মানুষের বাক স্বাধীনতা, ভোটাধিকার, আইনের শাসন, নাগরিক নিরাপত্তা, গণতান্ত্রিক অধিকার-এগুলো সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে সম্পৃক্ত। খালেদা জিয়াকে কারাগারে নিয়ে সরকার এগুলো সঙ্কুচিত করতে চায়।

আমীর খসরু মাহমুদ অভিযোগ করেন, সরকার আগামী সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গণতান্ত্রিক স্পেসগুলোকে এমন জায়গায় নিয়ে যাবে যাতে বিএনপির আর নির্বাচনে অংশ নেয়ার আগ্রহ না থাকে। একই সঙ্গে মানুষকে তার ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে না পারে।

আগামী একাদশতম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের একটি অবাধ, গ্রহণযোগ্য ও অংশগ্রহণমুলক নির্বাচন আয়োজনে দেশে-বিদেশে দাবি উঠেছে জানিয়ে নেতাকর্মীদের আরো বেশি সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানান দলটির এই নীতি নির্ধারক।

You Might Also Like