প্রবল শীতে ইউরোপে ৫৫ জনের মৃত্যু

সাইবেরিয়া থেকে আসা শৈত্যপ্রবাহে রীতিমতো জমে যাওয়ার দশা হয়েছে ইউরোপের বড় একটি অংশের। প্রচণ্ড শীতে ইউরোপজুড়ে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ৫৫ জনের মৃত্যু হয়েছে।

বিবিসি জানিয়েছে, তুষার ঝড় ও প্রবল তুষারপাতের কারণে ইউরোপের বেশ কয়েকটি দেশের সড়ক-মহাসড়ক বন্ধ হয়ে গেছে। রেল সেবা ও স্কুল বন্ধ করতে বাধ্য হয়েছে কর্তৃপক্ষ। এছাড়া শতাধিক ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার পর্যন্ত প্রচণ্ড শীতে মৃত্যুর সংখ্যা ৫৫ তে দাঁড়িয়েছে। এদের মধ্যে ২১ জনই পোল্যান্ডের বাসিন্দা। এছাড়া স্লোভাকিয়ায় সাতজন ও চেক প্রজাতন্ত্রে ছয়জনের মৃত্যু হয়েছে। গৃহহীন এসব লোক বাজে আবহাওয়ার মধ্যেও রাস্তায় রাত কাটানোয় এ ঘটনা ঘটেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এক বিবৃতিতে সতর্ক করে দিয়ে বলেছে, গৃহহনী ও অভিবাসী লোকজন এই প্রবল শীতের শিকার হচ্ছে এবং ঠান্ডায় জমে মারা যাচ্ছে।

ফ্রান্সের স্নিগ্ধ সমুদ্র সৈকত বলে পরিচিত ফ্রেঞ্চ রিভেরিয়াতে তুষারপাত হয়েছে। দেশটির মন্টপিলার শহরের কাছে একটি মহাসড়কে ২ হাজার চালক গাড়ি নিয়ে আটকা পড়েছে। এদের অনেকেই অভিযোগ করেছেন, রাস্তায় বরফ জমে যাওয়ায় গত ২৪ ঘন্টা ধরে তারা আটকা পড়ে আছেন। ঘূর্ণিঝড় এমা দক্ষিণ দিকে সরে আসায় আয়ারল্যান্ডে গত কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ তুষারপাত হয়েছে। শনিবার সকাল পর্যন্ত ডাবলিন বিমানবন্দর থেকে সব ধরনের ফ্লাইট বাতিল করা হয়েছে। সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় প্রধান বিমানবন্দর বৃহস্পতিবার সকালে বন্ধ করে দিতে বাধ্য হয় কর্তৃপক্ষ। পরে রানওয়ে থেকে তুষারের স্তুপ সরানোর পর বিমান চলাচল শুরু হয়। আর্মস্টারডামের স্কিুফল বিমানবন্দরে বরফ শীতল বাতাসের কারণে কেএলএম এয়ারলাইন্স তাদের কয়েক ডজন ফ্লাইট বাতিল অথবা স্থগিত করেছে। লন্ডন, প্যারিস ও ব্রাসেলসের মধ্যে চলাচলকারী কয়েকটি ট্রেনের যাত্রা বাতিল করা হয়েছে।

You Might Also Like