তিকরিত থেকে পালালো ইরাকি সৈন্যরা

সুন্নী বিদ্রোহীদের মার খেয়ে তিকরিত থেকে পালিয়ে গেছে ইরাকি সৈন্যরা। খবর রয়টার্স’র।

তিকরিত দখলের জন্য ইরাকি নিরাপত্তা বাহিনী আক্রমণ শুরু করলে সুন্নী যোদ্ধারা, যা ইসলামিক স্টেট (আইএস) বা খেলাফত নামেও পরিচিত, দুর্বার প্রতিরোধ গড়ে তোলে। শেষ পর্যন্ত ইরাকি বাহিনী পিছু হটতে বাধ্য হয়।

এটাকে ইরাক সরকারের জন্য একটি বড় ধাক্কা হিসেবে দেখা হচ্ছে। এরফলে সুন্নী যোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে থাকা ইরাকের বিশাল অংশ পুনর্দখলের জন্য সরকারের প্রচেষ্টা মারাত্মকভাবে হোঁচট খেল।

তিকরিত ছাড়াও মসুলসহ ইরাকের বিশাল এলাকা এখন সুন্নী যোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে।

এ ঘটনা এমন সময় ঘটলো যখন মধ্যপন্থী সুন্নী  ইসলামপন্থী রাজনীতিক সেলিম আল-জাবুরিকে ইরাকি সংসদের স্পিকার নির্বাচিত করা হয়েছে। তবে প্রধানমন্ত্রী নুরি আল-মালিকি  তৃতীয় মেয়াদে প্রধানমন্ত্রী হতে পারবেন কিনা তা নিয়ে অনিশ্চয়তা রয়েই গেছে।

সূত্র জানায়,  সুন্নী যোদ্ধাদের তুমুল মর্টার ও স্নাইপার হামলার পর সরকারি সৈন্য এবং সহযোগী শিয়া স্বেচ্ছাসেবীদের মঙ্গলবার সন্ধ্যার আগেই তিকরিত থেকে সরিয়ে নেয়া হয়।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, বুধবার সকালে তিকরিতে কোনো লড়াই দেখা যায়নি।

বাগদাদ থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত তিকরিত সাবেক স্বৈরশাসক সাদ্দাম হোসেনের অনুগত সৈন্যদের একটি শক্ত ঘাঁটি।

টুইটারে সুন্নী যোদ্ধাদের পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়, তারা সরকারি সোয়াত বাহিনীর ফেলে যাওয়া সাঁজোয়া যানের পাশে কালো পতাকা নিয়ে পোজ দিচ্ছেন।

এদিকে তিকরিতের দক্ষিণপূর্ব দুলুইয়া শহরের সরকারি অফিস আদালত দখল করে নিয়েছে আইএস যোদ্ধারা।

সেখানে সরকারি বাহিনীর সাথে বিদ্রোহীদের তুমুল লড়াইয়ের ফলে স্থানীয় অধিবাসীরা নৌকায় করে টাইগ্রিস নদী পার হয়ে অন্যত্র আশ্রয় নিচ্ছে।

You Might Also Like