খেলোয়াড়কে লাথি মারা সেই রেফারি নিষিদ্ধ

রেফারি টনি চ্যাপরন নিষিদ্ধ হয়েছেন। খেলোয়াড়ের পায়ের সঙ্গে লেগে পড়ে মেজাজ হারিয়ে নিজেই অপেশাদার আচরণ করে বসেন রেফারি। পরবর্তী ঘোষণা না দেওয়া পর্যন্ত তাকে নিষিদ্ধের কথা জানিয়েছে ফ্রেঞ্চ ফুটবল লিগ (এলএফপি)।

গত রোববার রাতে লিগ ওয়ানে পিএসজি ও নঁতের মধ্যকার ম্যাচে খেলোয়াড় ও রেফারির সংঘর্ষের অনাকাঙ্খিত এ ঘটনা ঘটে। ম্যাচের ৯০ মিনিটে বলের পেছনে ছুটছিলেন নঁতের ডিফেন্ডার ডিয়েগো কার্লোস। এসময় দৌড়াতে গিয়ে কার্লোসের পায়ের সঙ্গে লেগে পড়ে যান রেফারি চ্যাপরন। পড়ে গিয়ে দৌড়াতে থাকা কার্লোসকে লাথি মেরে বসেন তিনি। এরপর উঠে দ্বিতীয় হলুদ কার্ড দেখিয়ে কার্লোসকে মাঠছাড়া করেন চ্যাপরন।

তবে মাঠে মেজাজ হারিয়ে এমন অপেশাদার আচরণের জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন রেফারি চ্যাপরন। মাঠে পড়ে গিয়ে তাৎক্ষনিক চোটে মেজাজ হারিয়ে ফেলেন বলে জানান তিনি। এ প্রসঙ্গে এএফপিকে চ্যাপরন বলেন, ‘এলএফপি ডিসিপ্লিনারি কমিশনের কাছ থেকে আমি একটি প্রতিবেদন পেয়েছি। সেখানে কার্লোসের দ্বিতীয় হলুদ কার্ড তুলে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। ভিডিও ফুটেজ দেখে নিশ্চিত হয়েছে যে, আমার সঙ্গে কার্লোসের সংঘর্ষের ঘটনা ইচ্ছাকৃত ছিল না।’

ফুটবল ম্যাচে চলাকালীন অপেশাদার আচরণের জন্য সাধারণত খেলোয়াড়দের শাস্তি দিয়ে থাকেন রেফারি। কিন্তু উল্টো রেফারিই যখন মেজাজ হারিয়ে খেলোয়াড়দের সঙ্গে অপেশাদার আচরণ করে বসেন, তখন ব্যাপারটা এখটু ভিন্ন দেখায়। খেলোয়াড়কে লাথি মারা ও লাল কার্ড দেখানোর জন্য পরবর্তী নোটিশ না দেওয়া পর্যন্ত নিষিদ্ধ থাকছেন চ্যাপরন। বৃহস্পতিবার এলএফপি ডিসিপ্লিনারি কমিটির মিটিংয়ে চ্যাপরনের এমন ঘটনা নিয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত আসবে।

You Might Also Like