ক্যালিফোর্নিয়ায় ভূমিধসে নিহত ১৩

যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় অতিবৃষ্টির কারণে ভূমিধসে ১৩ জন নিহত হয়েছে। দেশটির কর্মকর্তাতারা জানিয়েছেন, ভূমিধসে কোমর সমান গর্তের সৃষ্টি হয়েছে এবং বন্যা দেখা দিয়েছে।

উদ্ধারকর্মীরা জানায়, ওই এলাকা থেকে ১৬৩ জনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে ২০ জন ঝড়ে আহত হয়েছে। এ ছাড়া চারজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। শান্তা বারবারার পূর্ব দিকের রোমিরো ক্যানিয়ন এলাকায় অন্তত ৩০০ জন আটকা পড়েছে।

দেশটির পুলিশ জানায়, জায়গাটি দেখলে মনে হচ্ছে প্রথম বিশ্বযুদ্ধের কোনো যুদ্ধক্ষেত্র। প্রধান উপকূলীয় এলাকা থেকে ৩০ মাইলের বেশি এলাকায় বন্যা এবং ভূমিধস হয়েছে। ওই এলাকা গত মাসে দাবানলে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। বিপুল সংখ্যক লোকের অবস্থা আশঙ্কাজনক এবং মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে।

হাজার হাজার লোক বন্যার কারণে ঘরবাড়ি ছেড়ে গেছে। ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার বাড়িগুলো সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

শান্তা বারবারা কাউন্টির দমকল বিভাগের মুখপাত্র মাইক এলিয়াসন বলেন, অতি বৃষ্টির কারণে মন্টেসিটো এলাকায় ভয়াবহ ভূমিধস হয়েছে। পাহাড়ের ছোট ছোট পাথরগুলো গড়িয়ে গড়িয়ে নিচে পড়ে রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে।

কাউন্টি দমকল বিভাগের ক্যাপ্টেন ডেভ জানিবনি জানান, মঙ্গলবার মন্টেসিটো এলাকা থেকে ৫ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে ঝড়ের কারণে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের কোস্ট গার্ড উদ্ধার অভিযানে সহযোগিতা করতে একাধিক উদ্ধারকারী উড়োজাহাজ পাঠিয়েছে। একই সঙ্গে জনগণকে ড্রোন উড়াতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে। কেউ যদি ড্রোন ওড়ায় তবে তা মাটিতে নামিয়ে আনা হবে।

কাউন্টির ১০১ নম্বর মহাসড়কসহ বেশ কয়েকটি সড়ক ভূমিধস ও বাড়িঘরের ধ্বংসাবশেষ রাস্তায় পড়ার জন্য বন্ধ করা হয়েছে।

ক্যালিফোর্নিয়ায় যেসব বাড়ি কখনোই বন্যাকবলিত হয়নি, সেসব বাড়ি মালিকদেরও সতর্ক করে দ্য ফেডারেল ইমার্জেন্সি ম্যানেজমেন্ট এজেন্সি জানিয়েছে, ওইসব বাড়িও এখন ঝুঁকিপূর্ণ।

এর আগে সোমবার প্রায় ৩০ হাজার বাসিন্দাকে পুনর্বাসনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

You Might Also Like