তুরস্কের সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করার জন্য শর্ত দিল মিশর

মিশরের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সামেহ শুকরি তুরস্কের সঙ্গে তার দেশের সম্পর্ক শক্তিশালী করার জন্য শর্ত আরোপ করেছেন। তিনি বলেছেন, কায়রোর সঙ্গে সম্পর্ক শক্তিশালী করতে হলে আঙ্কারাকে মিশরের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ বন্ধ করতে হবে।

শুকরি বলেন, “মিশর ও তুরস্কের সম্পর্কে কোনো পরিবর্তন আসেনি; যদিও বারবার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কে উত্তেজনা প্রশমনের আহ্বান জানাচ্ছে তুরস্ক।”

সামেহ শুকরি বলেন, তুরস্ক মিশরের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে নাক গলানো বন্ধ করলেই দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে যাবে এবং সে সম্পর্ক থেকে দু’দেশই লাভবান হবে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সম্প্রতি কায়রো সফরকালে মিশর ও তুরস্কের সম্পর্ক উন্নয়নের জন্য মধ্যস্থতা করার প্রস্তাব দিয়েছেন বলে যে খবর বেরিয়েছিল সামেহ শুকরি তা নাকচ করেন।
রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন গত ১১ ডিসেম্বর সিরিয়া সফর শেষে কায়রো সফরে যান। ওই সফরে তিনি মিশরের প্রেসিডেন্ট আব্দেল ফাত্তাহ আস-সিসির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। প্রেসিডেন্ট পুতিন কায়রো থেকে আঙ্কারা যান এবং সেখানে তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়্যেব এরদোগানের সঙ্গে বৈঠক করেন।

পুতিনের এ সফরের পর গণমাধ্যম ও রাজনৈতিক অঙ্গনে এই জল্পনা তৈরি হয় যে, তিনি মিশর ও তুরস্কের মধ্যে মধ্যস্থতা করার জন্য এ সফর করেছেন।

২০১৩ সালে মিশরের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মাদ মুরসি সামরিক অভ্যুত্থানে ক্ষমতাচ্যুত ও বন্দি হওয়ার পর থেকে তুরস্কের সঙ্গে দেশটির সম্পর্কে শীতলতা নেমে আসে। ওই সামরিক অভ্যুত্থানের হোতা জেনারেল সিসি বর্তমানে মিশরের প্রেসিডেন্টের পদে আসীন রয়েছেন। সাবেক প্রেসিডেন্ট মুরসির সঙ্গে তুরস্কের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল এবং আঙ্কারা মিশরের সামরিক অভ্যুত্থানের কঠোর নিন্দা জানিয়েছিল।

You Might Also Like