সেলফি তুলে দেশ ত্যাগে বাধ্য হলেন ‘মিস ইরাক’

সেলফি তুলে সপরিবারে দেশ ত্যাগ করতে বাধ্য হয়েছেন ‘মিস ইরাক’ সারাহ আব্দুল্লাহ ইডান। শুনতে অবাক লাগলেও এমন ঘটনা ঘটেছে যুদ্ধবিধ্বস্ত ইরাকে। ইসরায়েলভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ‘দ্য টাইমস অব ইসরায়েল’ এ খবর প্রকাশ করেছে।

সম্প্রতি টোকিওতে অনুষ্ঠিত হয় মিস ইউনিভার্স প্রতিযোগিতা। এতে অংশ নিয়েছিলেন সারাহ ও ইসরায়েলের সেরা সুন্দরী অ্যাডার। এ সময় তারা সেলফি তুলেছিলেন। ছবিটি সারাহ তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেন। ক্যাপশনে লেখেন: ‘ভালোবাসা এবং শান্তি মিস ইরাক এবং মিস ইসরায়েলের তরফ থেকে।’

কিন্তু সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবিটি পোস্ট করার পরই গোটা ইরাকে ‘খলনায়ক’ বনে যান সারাহ। একের পর এক নেতিবাচক মন্তব্য আসতে থাকে। এমনকি সারাহকে খুনের হুমকিও দেওয়া হয়। এরপরই সপরিবারে ইরাক ছাড়তে বাধ্য হন এই সুন্দরী।

সম্প্রতি জেরুজালেমকে ইসরায়েলের রাজধানীর স্বীকৃতি দেয় আমেরিকা। তারপর থেকেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের উপর ক্ষোভ উগড়ে দেয় বিশ্বের বহু দেশ। এদিকে সিরিয়া, লিবিয়া, ইরাকসহ বিভিন্ন দেশের সঙ্গেই ইসরায়েলের সম্পর্ক খারাপ। আর তারই ক্ষোভ যেন এসে পড়ল সারাহর ছবিতে।
প্রকাশিত ছবিটি নিয়ে বিতর্ক তৈরি হলেও ছবিটি এখনো প্রোফাইল থেকে মুছে ফেলেননি সারা। পাশাপাশি অ্যাডারকে জানিয়েছেন, এই ছবি তোলার জন্য তিনি বিন্দুমাত্র লজ্জিত নন। একটি পোস্টে সারা লেখেন: ‘দুই দেশের মধ্যে শান্তি এবং ভালোবাসার সম্পর্ক স্থাপন করতেই ছবিটি পোস্ট করা হয়েছে। একসঙ্গে ছবি তোলার অর্থ এই নয় যে, তিনি ইসরায়েল সরকারকে সমর্থন করছেন। এই ছবিটি দেখে যারা দুঃখ পেয়েছেন, তাদের কাছে আমি ক্ষমা চাইছি।’

You Might Also Like