রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হচ্ছে আন্তর্জাতিক সম্মেলন

রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে আজ ঢাকায় শুরু হয়েছে দু’দিনের এক আন্তর্জাতিক সম্মেলন। রিফিউজি অ্যান্ড মাইগ্রেটরি মুভমেন্ট রিসার্চ ইউনিট (রামরু) উদ্যোগে ‘মিয়ানমার সরকার কর্তৃক রোহিঙ্গাদের ওপর ধীরগতিতে চালানো গণহত্যা অবসান’ শীর্ষক এই সম্মেলনে আন্তর্জাতিক সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা অংশ নিয়েছেন।

রামরুর নির্বাহী পরিচালক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের অধ্যাপক সি আর আবরার জানিয়েছেন, এই সম্মেলনে আন্তর্জাতিকভাবে রোহিঙ্গা ইস্যুতে দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন বা করেছেন এমন ব্যক্তিরা কথা বলবেন। ইতোমধ্যে এই সম্মেলনে অংশ নিয়ে দেশি-বিদেশি ৪০০ জন বিশেষজ্ঞ নিবন্ধন করেছেন। সরকারের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক সুশীল সমাজ কী ভাবছে, কীভাবে মর্যাদার সঙ্গে মিয়ানমার রোহিঙ্গা নাগরিকদের দ্রুত ফিরিয়ে নিতে পারে সে বিষয়ে সুপারিশ ও পরামর্শ দেয়া হবে। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন জাতীয় জাদুঘর থেকে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার পর্যন্ত সংহতি র‌্যালি অনুষ্ঠিত হবে।
এদিকে, জনমানবহীন ঠেঙ্গারচরে রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসনের সব পরিকল্পনা বাদ দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে আহ্বান জানিয়েছে মানবাধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

সংস্থার দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক পরিচালক বিরাজ পাটনায়েক বলেছেন, ওই দ্বীপটি শরণার্থীদের অন্যান্য আশ্রয়শিবির থেকে অনেক দূরে। বন্যায় তা বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। বিপদজনক এক পরিস্থিতি সৃষ্টি হয় সেখানে। এমন জনমানবহীন একটি দ্বীপে রোহিঙ্গাদের পুনর্বাসন করা হবে ভয়াবহ একটি ভুল সিদ্ধান্ত।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনালের নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এসব কথা বলা হয়েছে। ‘বাংলাদেশ: রোহিঙ্গা রিফিউজিস মাস্ট নট বি রিলোকেটেড টু আনইনহ্যাবিটেবল আইল্যান্ড’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ সরকার ওই ঠেঙ্গারচরে কমপক্ষে এক লাখ রোহিঙ্গাকে পুনর্বাসন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

You Might Also Like