প্রিয়াংকা হত্যা : শাস্তি কমে আসামির যাবজ্জীবন

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী সাদিয়া নওশীন প্রিয়াংকা হত্যা মামলায় ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি তার মামা জাহিদুল ইসলাম রিন্টুর শাস্তি কমিয়ে যাবজ্জীবন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় বিচারপতি ভবানী প্রসাদ সিংহ ও বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলামের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে রায় পাঠ শুরু হয়। দুপুর পৌনে ৩টার দিকে রায় ঘোষণা করেন আদালত।

আদালতে আসামির পক্ষে অ্যাডভোকেট জগলুল হায়দার আফ্রিক ও রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশিরউল্লাহ উপস্থিত আছেন।

এর আগে ২০১২ সালের ২৯ জানুয়ারি প্রিয়াংকা হত্যা মামলার একমাত্র আসামি তার আপন মামা জাহিদুল ইসলাম রিন্টুকে ফাঁসির আদেশ দেন আদালত। ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মোতাহার হোসেন এ রায় দেন।

পরে এই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন জাহিদুল ইসলাম রিন্টু। জাহিদের বাড়ি পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়া উপজেলার বিত্রা গ্রামে। তার বাবার নাম এনায়েত হোসেন।

২০০৭ সালের ১৮ জুলাই বড় মগবাজার এলাকার ৫৩৬/১, পেয়ারাবাগের বাসায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ছাত্রী সাদিয়া নওশীন প্রিয়াংকাকে হত্যা করা হয়। ঘটনার পর প্রিয়াংকাকে তার নিজ কক্ষে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় পাওয়া যায়। জাহিদুল ইসলাম রিন্টু শ্বাসরোধ করে প্রিয়াংকাকে হত্যা করেছে- এমন অভিযোগে প্রিয়াংকার বাবা সুলতান ফারুক রমনা থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনা তদন্ত করে সিআইডির পরিদর্শক মাগফুরুল ওয়াদুদ আসামি জাহিদকে অভিযুক্ত করে ২০০৯ সালের ২৭ জুন আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন।

You Might Also Like