রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে রাজি মিয়ানমার, গঠন হচ্ছে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ

রাখাইন রাজ্য থেকে বিতাড়িত হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা মুসলমানদের ফেরত নিতে রাজি হয়েছে মিয়ানমার। পাশাপাশি মিয়ানমার কফি আনান রিপোর্ট বাস্তবায়নেও সম্মত হয়েছে দেশটি।

গতকাল (মঙ্গলবার) মিয়ানমারের রাজধানী নেপিডোতে দু’দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠকের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ‘শিগগিরই’ বাংলাদেশ থেকে নাগরিকদের ফিরিয়ে নিতে সম্মত হয়েছে মিয়ানমার কর্তৃপক্ষ। এই সংকটের সমাধানে তারা কফি আনান কমিশনের সুপারিশ বাস্তবায়নের অঙ্গীকার করেছে বলেও এতে বলা হয়েছে। এছাড়া প্রতিবছর একবার দুই দেশের সীমান্তরক্ষা বাহিনীর প্রধানদের সভা এবং প্রতি তিন মাস অন্তর আঞ্চলিক কর্মকর্তাদের মধ্যে উদ্ভূত সমস্যা সমাধানে নিয়মিত বৈঠক আয়োজনের সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠক শেষে দুই দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে নিরাপত্তা সহযোগিতা ও সংলাপ এবং সীমান্ত সহযোগিতা অফিস স্থাপন নিয়ে দুটি সমঝোতা স্মারক সই হয়।
বৈঠকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তাফা কামাল উদ্দীন, সুরক্ষা সেবা বিভাগের সচিব ফরিদ উদ্দীন আহমেদ চৌধুরী, আইজিপি এ কে এম শহিদুল হক, বিজিবির মহাপরিচালক মেজর জেনারেল আবুল হোসেন, কোস্টগার্ডের মহাপরিচালক রিয়ার এডমিরাল এ এম এম আওরঙ্গজেব চৌধুরী মিয়ানমারে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ সফিউর রহমান ছিলেন। অন্যদিকে মিয়ানমারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী লেফটেন্যান্ট জেনারেল কিও সই ও উপ-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অং সোয়ে ছাড়াও মন্ত্রিপরিষদ সচিব ও পররাষ্ট্র সচিবসহ বিভিন্ন দপ্তরের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকের পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেন, “আলোচনায় দুই দেশের জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠনের কথা ওঠে। আমরা বলেছি, ৩০ নভেম্বরের মধ্যে জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ গঠন করতে হবে।”
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “তারা বলেছে, রোহিঙ্গারা বাঙালি। আমি বলেছি, সারা পৃথিবীতে ৩৫ কোটি মানুষ বাংলায় কথা বলে। বাংলাদেশের নাগরিক মাত্র ১৬ কোটির সামান্য বেশি। বাংলায় কথা বললেই কেউ বাংলাদেশি নয়। তাছাড়া রোহিঙ্গারা বাংলায় কথা বলে না। তারা তাদের ভাষাতে কথা বলে।”

বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা বাসস জানিয়েছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের আগামীকাল সকাল ১০টায় (স্থানীয় সময়) মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর অং সান সুচির সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে। ১২ সদস্যের প্রতিনিধি দল নিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বর্তমানে মিয়ানমারে সরকারি সফরে রয়েছেন।

এর আগে বাংলাদেশ ও মিয়ানমারের পদস্থ কর্মকর্তারা সচিব পর্যায়ে এক সভায় মিলিত হন। এতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সচিব মোস্তফা কামাল উদ্দিন বাংলাদেশ পক্ষের নেতৃত্ব দেন। মিয়ানমারের সচিব ইউন টিন মায়েন্ট তার দেশের ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান ১২ সদস্যের বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল নিয়ে গতকাল মিয়ানমারে তিন দিনের সরকারি সফরে গেছেন।

You Might Also Like