হাঙরের তাড়া খেয়ে সাড়ে সাত কিলোমিটার

অস্ট্রেলিয়ার উপকূলে এক হাঙরের তাড়া খেয়ে সাড়ে সাত কিলোমিটার সাঁতরে কূলে পৌঁছান এক ব্রিটিশ ডুবুরি।

গত শুক্রবার অস্ট্রেলিয়ার পশ্চিম উপকূলে পানির নিচে মাছ শিকার করছিলেন ৩৪ বছর বসসি জন ক্রেইগ। পানির ওপরে নৌকা নিয়ে অপেক্ষায় ছিলেন তার এক বন্ধু। কিন্তু তিনি যখন পানির নিচ থেকে উপরে এলেন, তখন দেখেন নৌকা নেই। সে সময় তার পাশেই একটি হাঙর ঘোরাঘুরি করছি।

তিনি বলেন, হাঙরটি দেখে সাহায্যের জন্য চিৎকার করছিলেন এবং হাতপা ছুঁড়ছিলেন। কিন্দু কেউ-ই এগিয়ে আসেনি। তার মনে হচ্ছিল, হাঙরটি তাকে লক্ষ্য করছে, তার দিকে তেড়ে আসছে। তারপর তীরে ফেরার জন্য সাঁতার কাটতে শুরু করেন তিনি। তীরে ফিরে আরো ৩০ মিনিট হাঁটার পর তাকে লোকজন দেখতে পায়।

জন ক্রেইগ একজন অভিজ্ঞ ডুবুরি। যুক্তরাজ্যের সান্ডারল্যান্ডের এই বাসিন্দা দুই বছর আগে অস্ট্রেলিয়া যান। তিনি বলেন, এটি ছিল বিশাল আকৃতির টাইগার শার্ক, যার দৈর্ঘ ছিল প্রায় ৪ মিটার।

বিবিসিকে ক্রেইগ বলেন, এটি আমার খুব কাছাকাছি ছিল ও কৌতূহলী দেখাচ্ছিল। আমাকে কেন্দ্র বিভিন্ন দিক থেকে আমার দিকে আসার চেষ্টা করছিল। আমাকে খাবারের তালিকায় যোগ করতে চেষ্টা চাচ্ছিল এটি।

তিনি আরো বলেন, ‘খুবই আতঙ্কজনক। আমার মনে হচ্ছিল, জনশূন্য এই জলরাশিতে আমাকে খাবে এটি… হাঙরটি আমাকে একা ছাড়বে না।’ তবে সেই ভয়ংকর পরিস্থিরি মুখে দুঃসাহসী ক্রেইগ নিজেকে বাঁচিয়েছেন আর এ জন্য তাকে সাড়ে সাত কিলোমিটার পানি সাঁতার দিতে হয়েছে।

ইন্টারন্যাশনাল শার্ক অ্যাটাক ফাইলের তথ্যমতে, উপকূলে মানুষের ওপর হামলার দিক থেকে টাইগার শার্ক দ্বিতীয় অবস্থানে। অস্ট্রেলিয়া উপকূলে হাঙরের আক্রমণে প্রায়ই মৃত্যুর ঘটনা ঘটে থাকে।

তথ্যসূত্র : বিবিসি অনলাইন

You Might Also Like