প্রধান বিচারপতির ‘ছুটি’ নিয়ে বাগযুদ্ধ, জনসম্মুখে হাজির করার দাবি

বাংলাদেশের ষোড়শ সংশোধনীর আপিলের রায়ের জের ধরে ‘আক্রোশমূলকভাবে’ প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে ছুটিতে যেতে বাধ্য করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

আজ (বুধবার) সকালে নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ফখরুল অভিযোগ করেন, “প্রধান বিচারপতিকে জোর করে দায়িত্ব থেকে বিরত রাখা হয়েছে। সর্বোচ্চ আদালতের বিচারপতির সঙ্গে এমন আচরণ করা থেকে প্রমাণিত হয় যে, সরকার অস্তিত্ব সংকটের ভীত হয়ে বেসামাল হয়ে পড়েছে।”

মির্জা ফখরুল প্রধান বিচারপতিতে ছুটিতে পাঠানোকে দেশের বিচার বিভাগের ‘স্বাধীনতা হরণের ক্ষেত্রে একটি নোংরা দৃষ্টান্ত’ বলে মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, ‘সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের সর্বসম্মত রায় দেওয়ার পর থেকে সর্বোচ্চ আদালত এবং তার সম্মানিত বিচারপতিগণকে সরকারপ্রধান থেকে সরকারের মন্ত্রী, সরকারি দল ও জোটের নেতাকর্মীরা অসাংবিধানিক, অযৌক্তিক ও কুৎসিত ভাষায় সমালোচনা করে চলেছেন। এমনকি জাতীয় সংসদে যে ভাষায় সর্বোচ্চ আদালত ও তার বিচারপতিগণের সমালোচনা করা হয়েছে, তা শুধু অভূতপূর্ব নয়, অস্বাভাবিকও। সর্বোচ্চ আদালতের রায় পছন্দ না হলে তা রিভিউ করার সাংবিধানিক প্রক্রিয়ায় না গিয়ে সরকার দেশের প্রবীণ বিচারপতিকে নজিরবিহীনভাবে ছুটি নিতে বাধ্য করার যে নোংরা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে, তার বিরুদ্ধে দেশের আইনজীবী সমাজের পাশাপাশি সচেতন জনগণ প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছেন।’

তিনি শক্তি প্রয়োগ করে বিচার বিভাগকে অনুগত করার সরকারি অপচেষ্টার বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধভাবে সোচ্চার হতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান।
‘প্রধান বিচারপতি বাসায় আছেন’

তবে, সরকারের আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেছেন, ‘প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা অসুস্থ হয়ে বাসায় আছেন। তাঁর এই অসুস্থতা নিয়ে রাজনীতি না করার জন্য বিএনপির প্রতি অনুরোধ জানান আইনমন্ত্রী।

আজ (বুধবার) সচিবালয়ে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকরা জানতে চান, প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহা কি গৃহবন্দী? এ প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘নিশ্চয়ই না।’

প্রধান বিচাপতি এস কে সিনহা নানাবিধ শারীরিক সমস্যার কারণ দেখিয়ে ৩ অক্টোবর হতে ১ নভেম্বর, ২০১৭ পর্যন্ত ৩০ দিন ছুটি ভোগ করার অনুমতি চেয়ে প্রেসিডেন্টে কাছে আবেদন পাঠান। সোমবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা ছুটিতে যান। এর পর সোমবার রাতেই বিচারপতি আবদুল ওয়াহহাব মিঞাকে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচাপতি নিয়োগ দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে আইন মন্ত্রণালয়।
‘প্রধান বিচারপতি কোথায় আছেন জানি না’

এ প্রসঙ্গে সরকারের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম বুধবার দুপুরে তিনি সাংবাদিকদের বলেছেন, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা কোথায় আছেন সেটা আমি জানি না। আর একজন বিচারপতির জন্য বিচার বিভাগ থেমে থাকে না।
প্রধান বিচারপতিকে জনসম্মুখে হাজির করার দাবি

ওদিকে, প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা সুস্থ না অসুস্থ তার সম্পর্কে কেউ কিছু জানে না এমনটি দাবি করে সুপ্রিম কোর্টের সাধারণ আইনজীবীরা তাকে জনসম্মুখে হাজির এবং আদালতে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন। আইনজীবীরা আজ বেলা সোয়া ১টা থেকে সুপ্রিম কোর্ট বারের সভাপতির কক্ষের সামনে প্রথমে প্রতিবাদ সভা করে। এরপর বার ভবনে বিক্ষোভ মিছিল করে এ দাবি জানান।

You Might Also Like